মেঘনায় ভুল চিকিৎসায় নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ


❏ শনিবার, আগস্ট ১৩, ২০২২ ঢাকা

মাসুম পারভেজ, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট: কুমিল্লার মেঘনা থানাধীন আল-শেফা জেনারেল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ভুল চিকিৎসায় নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার (১৩ আগস্ট) দুপুরে নবজাতকের পিতা উপজেলার বারহাজারী গ্রামের আল আমিন খন্দকার বাদী হয়ে মেঘনা থানায় এ অভিযোগ করেন।

নবজাতকের পিতা আল আমিন জানান, সন্ধ্যায় মানিকার চর বাজারে অবস্থিত আল-শেফা জেনারেল হাসপাতালে সিজারের মাধ্যমে পুত্র সন্তানের জন্ম হয়। জন্মের পর নবজাতককে ইঞ্জেকশন প্রয়োগ করা হয়, জানতে চাইলে বলা হয় টিকার ইঞ্জেকশন। নবজাতকের শারীরিক অবস্থা খারাপ দেখে আবার বাচ্চার পায়ে আরেকটি ইঞ্জেকশন প্রয়োগ করেন।

এবিষয়ে জানতে চাইলে রেগে গিয়ে বলেন আপনি কি ডাক্তার, পরে কিছু বলিনি। রাত ১টার দিকে ডেকে বলেন উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা নিতে হবে। আমাকে এম্বুলেন্স নিয়ে আসতে বলে এবং আমি কর্তব্যরত নার্স অভিযুক্ত স্বপ্না বেগমকে বলি আমার সন্তানকে আমার কাছে দেওয়ার জন্য, কিন্তু আমার কাছে না দিয়ে কাপড় দিয়ে শরীর মুখ ঢেকে রাখেন।

তিনি জানান, গাড়ি আনলে গাড়ির লাইট বন্ধ করে দিতে বলে, অন্ধকারে বাচ্চাটিকে দিয়ে দেয়, ৪০ মিনিটের মধ্যে মাতুয়াইল শিশু মাতৃ স্বাস্থ্য ইনিষ্টিটিউটে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক বলেন আপনার বাচ্চা অনেক আগেই অক্সিজেনের অভাবে মারা গেছে।

এই কথা শুনে আমি অভিযুক্ত সেই নার্সকে ফোন করে বিষয় টি বললে তিনি আমার সাথে দুর্ব্যবহার করে এবং হুমকি ধামকি প্রদর্শন করে।

এ বিষয়ে হাসপাতালের মালিক ফজলুল হক বলেন, সিজারের জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সুন্দরভাবে সিজার সম্পূর্ণ হয়। গভীররাতে হটাৎ বাচ্চার নিউমোনিয়া বেড়ে গেলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা পাঠিয়ে দেই।

ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ছমিউদ্দিন বলেন, বাচ্চাটিকে কবর দেওয়া হয়েছে শুনেছি। তদন্ত স্বাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. জালাল হোসেন মুঠোফোনে বলেন, আমি গত শুক্রবার হাসপাতালটি পরিদর্শন করেছি তাদের লাইসেন্স নবায়ন নেই এবং হাসপাতালের নিয়ম অনুযায়ী কোনকিছু নেই, সবকিছু অত্যন্ত নিম্নমানের, অতিশীঘ্র তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।