• আজ বুধবার, ২০ আশ্বিন, ১৪২৯ ৷ ৫ অক্টোবর, ২০২২ ৷

কথা বলতে পারছেন রুশদি, খুলে নেওয়া হয়েছে ভেন্টিলেটর


❏ রবিবার, আগস্ট ১৪, ২০২২ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: বুকারজয়ী ঔপন্যাসিক সালমান রুশদিকে ভেন্টিলেটর (কৃত্রিম উপায়ে শ্বাস-প্রশ্বাস নেওয়ার প্রক্রিয়া) থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে এবং তিনি এখন কথা বলতে পারছেন। স্থানীয় সময় শনিবার তাঁর এজেন্ট অ্যান্ড্রু উইলি এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন বলে জানিয়েছ ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি ও মার্কিন গণমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্ট।

রুশদির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ পরিচয় রয়েছে এমন একজন লেখক অতিশ তাসির টুইটার পোস্টে জানিয়েছেন, রুশদির শরীর থেকে ভেন্টিলেটর সাপোর্ট সরিয়ে নেওয়া হলেও তিনি এখনো হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। তবে তিনি কথা বলতে পারছেন।

সালমান রুশদির ওপর হামলায় লেবানিজ বংশোদ্ভূত এক মার্কিন নাগরিককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। হাদি মাতার (২৪) ‘পূর্বপরিকল্পিতভাবে হামলা’ করেছেন বলে অভিযোগ আনা হয়েছে। তবে হাদি মাতার হত্যার উদ্দেশ্যে হামলার কথা অস্বীকার করেছেন।

এনডিটিভি বলছে, শরীরে গুরুতর আঘাত নিয়ে সালমান রুশদি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। শুক্রবার নিউইয়র্কে শিটোকোয়া ইনস্টিটিউটে সাহিত্যবিষয়ক একটি অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেওয়ার আগে সালমান রুশদির ওপর হামলা হয়।

তাঁর পেট ও ঘাড়ে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। আহত রুশদিকে হেলিকপ্টারে করে পেনসিলভানিয়ার একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে তাঁর অস্ত্রোপচার হয়।

রুশদির ওপর চালানো এই হামলায় বিশ্বের অনেকে শোক জানিয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এ হামলার নিন্দা জানিয়েছেন।

ব্রিটিশ ভারতীয় ঔপন্যাসিক ও প্রাবন্ধিক রুশদির লেখা ‘স্যাটানিক ভার্সেস’ প্রকাশের পর ১৯৮৯ সালে মুসলিম বিশ্বে বিক্ষোভের ঝড় ওঠে। ধর্ম অবমাননার অভিযোগে তার মৃত্যুদণ্ড ঘোষণা করেন ইরানের তৎকালীন সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খোমেনি। রুশদির মাথার জন্য ২৮ লাখ ডলার পুরস্কার ঘোষণা করে ইরান। ২০১৬ সালে পুরস্কারের অঙ্ক বাড়িয়ে ৩৪ লাখ ডলার করা হয়।