🕓 সংবাদ শিরোনাম

গাছ থেকে যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার * পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পক্ষকালব্যাপী অনুষ্ঠানমালা * যে সংবাদের শিরোনামে ‘বিব্রত’ সময়ের কণ্ঠস্বর ! * গিনেস রেকর্ডে ফের শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করলেন ঠাকুরগাঁওয়ের রাসেল * অনিশ্চয়তার বেড়াজাল পেরিয়ে অবশেষে ঢাকা আসছেন ‘ড্যান্স কুইন’ নোরা ফাতেহি * বাসের ধাক্কায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত * বড়দের সামনে সিগারেট খাওয়া নিয়ে দ্বন্দে কয়েকদফা সংঘর্ষ, আহত ১১ জন * বগুড়ায় ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে সাবেক সেনা সদস্য খুন * পণ্ড বিয়ের আয়োজন, বর গেলো শ্রীঘরে, অর্থদণ্ড হলো কনের বাবার * মসজিদে নামাজরত অবস্থায় যুবককে ছুরিকাঘাত, হামলাকারী গ্রেপ্তার *

  • আজ শনিবার, ২৩ আশ্বিন, ১৪২৯ ৷ ৮ অক্টোবর, ২০২২ ৷

২৩ বছর পর যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার

Manikgonj news
❏ শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২২ ঢাকা

দেওয়ান আবুল বাশার, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট(মানিকগঞ্জ): মানিকগঞ্জে রাজনৈতিক মতবিরোধের জেরে কাবুল হত্যা মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী বিপ্লব (৫০) কে ২৩ বছর পর গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪। বৃহঃস্পতিবার সন্ধ্যায় র‌্যাবের একটি চৌকস অভিযানিক দল রাজধানীর মিরপুর এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে তাকে গ্রেফতার করে।

র‌্যাব জানায়, ১৯৯৯ সালের জুলাই মাসের প্রথম দিকে রাজনৈতিক মতবিরোধের জের ধরে বিপ্লব ও তার সহযোগীরা মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার গড়পাড়া এলাকার মোতালেব হোসেনের বাড়িতে ধারালো অস্ত্রশস্ত্রসহ হামলা চালায়। এসময় মোতালেব হোসেন বাড়িতে না থাকায় আসামিগণ ক্ষিপ্ত হয়ে মোতালেবের বাড়ির সামনে বিরোধী রাজনৈতিক মতাদর্শের ভিকটিম কাবুল খা কে পেয়ে তার উপর অতর্কিত হামলা করে ধারালো অস্ত্র দিয়ে উপর্যুপরি কুপিয়ে কাবুলকে রক্তাক্ত অবস্থায় ফেলে পালিয়ে যায়। স্থানীয় লোকজন কাবুলকে উদ্ধার করে মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক কাবুল কে মৃত ঘোষণা করে।

এই ঘটনার পরের দিন মোতালেব হোসেন বাদী হয়ে মানিকগঞ্জ সদর থানায় বিপ্লব সহ ২৮/৩০ জন আসামীর নাম উল্লেখ করে ৫০/৬০ জন অজ্ঞাত রেখে একটি হত্যা মামলা (১১(৭)৯৯, ধারা-১৪৮/১৪৯/৩০২/১১৪ পেনাল কোড) দায়ের করে।

ঘটনার পর থেকে বিপ্লবসহ অন্যান্য আসামীরা পলাতক থাকলে তদন্তকারী কর্মকর্তা তদন্ত শেষে আসামি বিপ্লব, মনির চৌধুরী, নিপ্পাই, মোশারফ হোসেন, সুনীল, উজ্জল, শহীদ সহ ১৩ জন আসামীর বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ পত্র জমা দেন। বিচার শেষে দায়রা আদালত বিপ্লব ও মনির চৌধুরীকে মৃত্যদন্ড এবং নিপ্পাই, মোশারফ হোসেন, সুনীল, উজ্জল ও শহীদকে যাবজ্জীবন কারাদন্ডসহ বাকি ছয় জনকে বেকসুর খালাস প্রদান করেন। এরপর থানা পুলিশ মনির চৌধুরী, উজ্জ্বল ও মোশারফ হোসেন কে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করলে আসামী মনির চৌধুরী উচ্চ আদালতে আপিল করেন। আপিলের ভিত্তিতে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল সাত আসামীর প্রত্যেককেই যাবজ্জীবন সাজা প্রদান করেন। পরবর্তীতে মোশাররফ হোসেন প্রায় চার বছর পূর্বে জেল হাজতে মৃত্যুবরণ করে। এরপর আসামি উজ্জ্বল উচ্চ আদালতে আপিল করলে আদালত তাকে বেকসুর খালাস দেন। মনির চৌধুরী বর্তমানে জেল হাজতে রয়েছে। উক্ত ঘটনার পর হতে বিপ্লব দীর্ঘ ২৩ বছর ধরে পলাতক ছিলো।

র‌্যাব ৪ এর কোম্পানি কমান্ডার মোহাম্মদ আরিফ হোসেন জানান, হত্যাকান্ডের পর থেকেই আসামী বিপ্লব গ্রেফতার এড়াতে ঢাকা চলে যায়। আত্মগোপনে থাকা অবস্থায় সে নিজের পরিচয় গোপন করে জাতীয় পরিচয় পত্রে বাবা ও মায়ের নাম ঠিক রেখে নিজের নাম বিপ্লবের পরিবর্তে শহিদুল ইসলাম ব্যবহার করে। এছাড়াও আত্মগোপনে থাকাকালীন গ্রেফতার এড়াতে সে ক্রমাগতভাবে পেশা পরিবর্তন করে আসছিলো। প্রথমদিকে সে ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় দোকানের কর্মচারী, ইলেকট্রিক মিস্ত্রী ও পরবর্তীতে পরিবেশ অধিদপ্তর, আগারগাঁও অফিসে প্রতারনামূলক দালালি করে জীবিকা নির্বাহ করতো। গ্রেফতারকৃত আসামীকে সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।