গাজীপুরে বেলুন বিস্ফোরণের ঘটনায় গ্রেফতার হলো ৩ আসামি


❏ মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২০, ২০২২ আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক: গাজীপুর পুলিশের অনুষ্ঠানে গ্যাস বেলুন বিস্ফোরণের ঘটনায় দায়ের করা মামলার তিন আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) রাতে টাঙ্গাইল ও ঢাকার বিভিন্ন স্থান থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার আসামিরা হলেন- মো. বাবুল, মো. মানিক ও মো. কিবরিয়া। গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী কমিশনার (ডিবি ও মিডিয়া) আবু সায়েম নয়ন বিষয়টি জানিয়েছেন।

তিনি আরও জানান, তারা বেলুন সরবরাহকারী বলে এজাহারে বলা হয়েছে। সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মোসাব্বির হোসেন শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে মামলাটি করেন।

এজাহারে বলা হয়, শুক্রবার (১৬ সেপ্টেম্বর) বিকেলে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের চতুর্থ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ আমন্ত্রিত অতিথিরা পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে মূল অনুষ্ঠান মঞ্চে চলে যান। কিন্তু বেলুনগুলো আকাশের দিকে না ওড়ে পুলিশ লাইন্সের ভিতরে অবস্থিত ইন-সার্ভিস ট্রেনিং সেন্টারের সামনে গিয়ে পড়ে বিস্ফোরিত হয়। এতে রনিসহ পুলিশের চার কনস্টেবল দগ্ধ হন।

এজাহারে আরও বলা হয়, আসামিরা উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে বেলুনের মধ্যে কৌশলে ক্ষতিকারক দাহ্য পদার্থ বা গ্যাস ব্যবহার করে বেলুন সরবরাহ করায় এগুলো বিস্ফোরিত হয়। এমনকি বেলুনগুলো পার্শ্ববর্তী উদ্বোধনী অনুষ্ঠান মঞ্চে বিস্ফোরিত হলে বড় ধরনের ক্ষতির আশংকা ছিল বলেও এজাহারে উল্লেখ করা হয়।

এদিকে সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে দুর্ঘটনায় দগ্ধদের খোঁজখবর নিতে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে যান পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ। এ সময় সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে এ ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনা এড়াতে সবাইকে আরও সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের অনুষ্ঠানে গ্যাস বেলুন বিস্ফোরণে দগ্ধ কৌতুকশিল্পী আবু হেনা রনি ও পুলিশ সদস্য জিল্লুর রহমানের শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে ভালো বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

এর আগে বেলুন বিস্ফোরণের ঘটনা অনুসন্ধানে শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) গাজীপুর মেট্রোপলিটনের উপ কমিশনার অপরাধ (উত্তর) আবু তোরাব মো. শামছুর রহমানকে প্রধান করে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে জিএমপি। গঠিত তদন্ত কমিটিতে কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার অপরাধ (উত্তর) রেজওয়ান আহমেদ, সহকারী কমিশনার (প্রসিকিউশন) ফাহিম আসজা ও গাজীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম।

গত ১৬ সেপ্টেম্বর বিকেলে জেলা পুলিশ লাইনস মাঠে নাগরিক সম্মেলন ও সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা উদ্বোধনের সময় গ্যাস বেলুন বিস্ফোরণে কৌতুক অভিনেতা আবু হেনা রনিসহ পাঁচজন দগ্ধ হন। দগ্ধরা হলেন- মিরাক্কেল খ্যাত কৌতুক অভিনেতা আবু হেনা রনি, জেলা পুলিশের কনস্টেবল মোশারফ হোসেন, গাছা থানার কনস্টেবল রুবেল হোসেন, টঙ্গী পূর্ব থানার কনস্টেবল জিল্লুর রহমান, গাছা থানার কনস্টেবল ইমরান হোসেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের চতুর্থ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে নাগরিক সম্মেলন ও সাংস্কৃতিক সন্ধ্যার আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান ও প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আইজিপি বেনজীর আহমেদ।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোল্যা নজরুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি পৌঁছালে তাকে উদ্বোধন মঞ্চে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তার হাতে বেশ কিছু বেলুন দেয়া হয় উড়িয়ে দেয়ার জন্য। কিন্তু বার বার চেষ্টা করেও সেই বেলুন উড়াতে ব্যর্থ হচ্ছিলেন পুলিশ সদস্যরা।

পরে কয়েকজন পুলিশ সদস্য সেই বেলুনগুলি মঞ্চের পাশে নিয়ে যান এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পুলিশ লাইনেই মূলমঞ্চে চলে যান। তিনি মঞ্চে চলে যাওয়ার কিছু সময় পর কয়েকজন পুলিশ সদস্যসহ অন্যরা বেলুনে আগুন লাগিয়ে উড়ানোর চেষ্টা করার সময় বিস্ফোরণ ঘটে।

এতে পাশে বসে থাকা কৌতুক অভিনেতা আবু হেনা রনিসহ পাঁচজন দগ্ধ হন। পরে আশপাশের পুলিশ সদস্যরা তাদের গায়ে পানি ঢেলে আগুন নেভান এবং গাড়িতে করে দ্রুত শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেন। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে আবু হেনা রনি, মোশাররফ হোসেন ও জিল্লুর রহমানকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে স্থানান্তর করা হয়।