🕓 সংবাদ শিরোনাম

হেলিকপ্টারে নামাজ আদায় করলেন ইমরান খান * হবিগঞ্জের মাধবপুরে ট্রাক-অটোরিকশা সংঘর্ষে দুইজন নিহত * মধুর সঙ্গে বিষ মিশিয়ে দুই সন্তানকে খাওয়ানোর পর আত্মহত্যার চেষ্টা মায়ের * অবৈধ কার্যকলাপের অভিযোগে গুলশানের স্পা সেন্টার থেকে ৯ জনকে গ্রেপ্তার * রোববার পর্যন্ত ইরানে হিজাববিরোধী বিক্ষোভে নিহতের সংখ্যা ৯২ * নিজের মেয়েকে হত্যা করে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে যেভাবে নাটক সাজায় বাবা! * কান্নাকাটি করায় বিরক্ত হয়ে ৩৫ দিনের শিশু কন্যাকে পুকুরে ফেলে দেন মা ! * তৃতীয়বারের মতো প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন, দুজনকেই শ্রীঘরে নিলো পুলিশ * বন্দরে মিশুক চালক কায়েস’র লাশ উদ্ধারের ১২ ঘন্টার মধ্যে গ্রেপ্তার ৩ * মঙ্গলবার দেশে ফিরবেন প্রধানমন্ত্রী *

  • আজ সোমবার, ১৮ আশ্বিন, ১৪২৯ ৷ ৩ অক্টোবর, ২০২২ ৷

সৌদি আরবের জাতীয় দিবস আজ


❏ শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২২ আন্তর্জাতিক

আব্দুল্লাহ আল মামুন, সৌদিআরব প্রতিনিধি: আজ ২৩ সেপ্টেম্বর সৌদি আরবের জাতীয় দিবস। দিবসটি মূলত সৌদি আরবের প্রতিষ্ঠা দিবস। ১৯৩২ সালের এই দিনে বাদশাহ আবদুল আজিজ অধীকৃত গোটা অঞ্চল নিয়ে তাঁর সউদ গোষ্ঠীর নামকরণে সউদের আরব তথা সৌদি আরব নাম রাখেন। পাশাপাশি তিনি রাজতন্ত্র ঘোষণা করেন।

সমগ্র সৌদিআরব জুড়ে আজ চলছে উৎসবমুখর পরিবেশ, প্রতিটি শহর রাস্তাঘাট জাতীয় পতাকা ও আলোকসজ্জা দিয়ে সাঁজানো হয়েছে এবং প্রতিটি সড়ক জুড়ে মোটরশোভাযুক্ত আনন্দঘন পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে ।

বাদশাহ আবদুল আজিজ ১৯০২ খ্রিস্টাব্দে কুয়েত থেকে এসে রিয়াদ দখল করেন। নজদের কেন্দ্রস্থল রিয়াদ। এখানে আবদুল আজিজের পূর্বপুরুষরা শাসন ক্ষমতায় ছিলেন। তুর্কি সালতানাতের সহযোগিতায় আল রশিদ রিয়াদ দখল করেছিলেন। এতে বাদশাহ আবদুল আজিজের পিতারা কাতার, বাহরাইন হয়ে কুয়েতে এসে বসবাস করতে থাকেন। ১৮৭৫ খ্রিস্টাব্দে জন্মগ্রহণকারী সাহসী যুবক বাদশাহ আবদুল আজিজ ৬০ জন অতি আপন আত্মীয় সহযোদ্ধা নিয়ে কুয়েত থেকে এসে রিয়াদ দখল করেন। আমির শরিফ হোসাইন ব্রিটিশের সহযোগিতা নিয়ে জেদ্দা হয়ে সাগরপথে ফিলিস্তিনের দিকে চলে যান। ১৯২৪ খ্রিস্টাব্দ থেকে বিশাল হেজাজ অঞ্চলও বাদশাহ আবদুল আজিজের দখলে চলে আসে ।

সে সময় থেকে দীর্ঘ ২১ বছর তিনি শক্ত হাতে তার প্রতিষ্ঠিত বিশাল দেশকে শাসন করেন ১৯৫৩ খ্রিস্টাব্দে আবদুল আজিজ ইন্তেকাল করেন। এতে স্বাভাবিক নিয়মে প্রথম পুত্র হিসেবে সউদ বাদশাহ হন। কিন্তু তিনি বারবার অযোগ্যতার প্রমাণ রাখতে থাকায় ১৯৬৪ খ্রিস্টাব্দে ফয়সাল বাদশাহের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তিনি সৌদি আরবের পাশাপাশি মুসলিম বিশ্বের পক্ষে নেতৃত্ব তথা মুরব্বিয়ানার ভূমিকা রেখে গেছেন। কিন্তু ১৯৭৫ খ্রিস্টাব্দে এসে ভ্রাতুষ্পুত্রের গুলিতে তিনি নিহত হন। বাদশাহ ফয়সাল নিহত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সৎভাই বাদশাহ খালেদ রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা গ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন নরম ও শান্ত প্রকৃতির। বাদশাহ খালেদ মাত্র সাত বছর দেশ শাসন করে ১৯৮২ খ্রিস্টাব্দে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ইন্তেকাল করেন। তার শাসন আমলে সৌদি আরবের অগ্রগতির সূচনা বলা হয়।

বাদশাহ খালেদের ইন্তেকালের সঙ্গে সঙ্গে যুবরাজ ফাহাদ বাদশাহ হন। তার আমলকে সৌদি আরবে নানা দিক থেকে স্বর্ণযুগ হিসেবে বিবেচিত হয়। বিশেষ করে হজ, ওমরাহ, জিয়ারতকারীদের কল্যাণে তার অবদান স্মরণীয় হয়ে থাকবে। তিনি রিয়াদে প্রভাবশালী সুদাইরি বংশের কন্যা হাসসা আল সুদাইরির প্রথম পুত্র। ফাহাদ ১৯২১ খ্রিস্টাব্দে রিয়াদে জন্মগ্রহণ করেন। ফাহাদরা সাত ভাই, তাদের সুদাইরি সেভেন বলা হয়। বাদশাহ ফাহাদ জীবনের শেষদিকে এসে অসুস্থ হয়ে পড়েন। ফলে যুবরাজ আবদুল্লাহ বাদশাহের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। ২০০৫ খ্রিস্টাব্দে বাদশা ফাহাদ ইন্তেকাল করলে আবদুল্লাহ পুরোপুরি বাদশাহের দায়িত্ব লাভ করেন।

১৯২৪ খ্রিস্টাব্দের ১ আগস্ট রিয়াদে জন্মগ্রহণ করেন বাদশাহ আবদুল্লাহ। বাদশাহ আবদুল্লাহর আছে দীর্ঘ ৯০ বছরের বর্ণাঢ্য জীবন। তিনি মায়ের দিক দিয়ে বাদশাহ আবদুল আজিজের একমাত্র পুত্র। তার আমলে বাদশাহ ফাহাদের সহোদর ছোট ভাই সুলতান ও নায়েফ যুবরাজ থাকা অবস্থায় ইন্তেকাল করেন। বাদশাহ আবদুল্লাহ বাদশাহ ফাহাদের মতো খাদেমুল হারামাইনিশ শরিফাইন টাইটেল বা লকব ধারণ করে নিয়েছিলেন। ২০১৫ খ্রিস্টাব্দের ২৩ জানুয়ারি বাদশাহ আবদুল্লাহ ইন্তেকাল করলে সৌদি রাজ পরিবারে প্রভাবশালী সুদাইরি পরিবারের কন্যার কনিষ্ঠ ও সপ্তম পুত্র বর্তমান বাদশাহ সালমান বাদশাহি পদ লাভ করেন।