• আজ শনিবার, ১৮ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৷ ৩ ডিসেম্বর, ২০২২ ৷

সোনারগাঁ পৌরসভার নির্বাচন দেড় বছর ধরে থমকে আছে আইনি জটিলতায়!

Nararyangonj news
❏ শনিবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২২ Uncategorized

সুমন আল হাসান,নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি: নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলাটি ১০টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত। ১০ ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়ে গেলেও আইনি জটিলতায় সোনাগাঁয়ের একমাত্র পৌরসভাটির নির্বাচন।

নির্বাচনি এলাকার সীমানা নিয়ে মামলার কারণে মেয়াদ শেষ হওয়ার ২০ মাসেও হচ্ছে না সোনারগাঁ পৌরসভার নির্বাচন। বর্তমানে সোনারগাঁ পৌরসভায় নির্বাচিত কোন জনপ্রতিনিধি না থাকায় সকল ধরনের উন্নয়ন কাজ স্থবির হয়ে পরেছে। নানা ধরনের ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন পৌরবাসী।

স্থানীয় বিচার শালিস, প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের সত্যায়ন, ওয়ারিশ সার্টিফিকেটসহ বিভিন্ন ধরনের কাজে পৌরসভার বাসিন্দারা চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন। এছাড়া বিভিন্ন ওয়ার্ডের রাস্তাঘাট ও ড্রেনেজ ব্যবস্থার নানা সমস্যা থাকলেও সেগুলো নিরসনে বর্তমানে কোন উদ্যোগ নেই। পৌরসভার মেয়র ও কাউন্সিলররা কেউ দায়িত্বে না থাকায় এসব উন্নয়ন কাজ এখন বন্ধ হয়ে আছে।

গত বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি সোনারগাঁ পৌরসভার নির্বাচিত মেয়র ও কাউন্সিলরদের ৫ বছরের মেয়াদ শেষ হয়। মেয়াদ শেষের ১৫ মাস পর গত ১৬ মে পৌরসভা পরিষদ বিলুপ্ত করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তৌহিদ এলাহীকে প্রশাসক নিয়োগ দেয়া হয়েছে। ফলে পৌরবাসীর প্রয়োজনীয় কাজকর্মের জন্য এখন দৌড়াতে হচ্ছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যলয়ে।

জানা গেছে, সোনারগাঁ পৌরসভার ছোট শীলমান্দি ও মল্লিকপাড়া মৌজার কিছু জমি ইকোনমিক জোনের জন্য ভূমি মন্ত্রণালয় কর্তন করে পার্শ্ববর্তী মোগরাপাড়া ইউনিয়নে অন্তর্ভূক্ত করে। পরে তৎকালীন পৌর মেয়র সাদেকুর রহমান বাদী হয়ে এর বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে একটি রিট পিটিশন দায়ের করেন। এ রিট পিটিশন নিষ্পত্তি না হওয়ায় সোনারগাঁ পৌরসভার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও নির্বাচন ঝুলে রয়েছে।

বর্তমানে প্রশাসক হিসেবে বাড়তি দায়িত্ব হিসেবে পৌরসভা পরিচালনা করছেন সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তৌহিদ এলাহী।

বিগত দুই বছর ধরে সোনারগাঁ পৌরসভার নির্বাচনকে ঘিরে হাফ ডজন মেয়র প্রার্থী ও অর্ধশত কাউন্সিলর প্রার্থী মাঠে সরব থাকলেও নির্বাচন অনিশ্চিত হওয়ায় সবার মধ্যে এখন হতাশা বিরাজ করছে। অনেকেই প্রচার প্রচারনা থেকে ইতিমধ্যে নিজেদেরকে গুটিয়ে নিয়েছেন। পাশাপাশি পৌরসভার সাধারণ মানুষও অনেকটাই হতাশ।

সোনারগাঁ পৌরসভার বাসিন্দা রফিকুল ইসলাম জানান, সোনারগাঁ পৌরসভায় নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি না থাকায় আমরা নানা দুভোর্গের শিকার হচ্ছি। বর্তমানে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব বেড়েছে কিন্তু মশা নিধনের কোন ব্যবস্থাই নেয়া হচ্ছে না। স্থানীয় কাউন্সিলর থাকলে তাকে বললে আমরা আগে এর প্রতিকার পেতাম। এখন তা থেকে বঞ্চিত হচ্ছি।

এ পৌরসভার মধ্যে ঐতিহাসিক পানাম নগরী ও সোনারগাঁ জাদুঘরসহ বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্র থাকায় প্রতিদিন এখানে বিপুল সংখ্যক পর্যটকের আগমন ঘটে। সুতরাং এখানকার রাস্তাঘাটের উন্নয়ন ও রক্ষনাবেক্ষনের জন্য নির্বাচিত জনপ্রতিনিধির বিকল্প নেই। যেহেতু মোগরাপাড়া ইউনিয়নের সঙ্গে সীমানা নিয়ে বিবাদ ছিল, এরই মধ্যে সেখানে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়ে গেছে, তাই পৌরবাসী আশা করেন- সরকার দ্রুত সোনারগাঁও পৌরসভার নির্বাচনেরও ব্যবস্থা করবে।

সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. ইউসুফ-উর-রহমান জানান, যেহেতু সোনারগাঁ পৌরসভার সীমানা নিয়ে আদালতে মামলা চলমান সুতরাং এটা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত নির্বাচনের কোন সম্ভাবনাই নেই।

সোনারগাঁ পৌরসভার বর্তমান প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তৌহিদ এলাহী জানান, সোনারগাঁয়ের মতো একটি গূরুত্বপূর্ণ পৌরসভায় অবিলম্বে নির্বাচন প্রয়োজন কিন্তু মামলার কারণে তা সম্ভব হচ্ছে না। পৌরসভার সাবেক মেয়র এ মামলার বাদী সুতরাং তিনি এ মামলা নিষ্পত্তির ব্যপারে ভুমিকা রাখতে পারেন।