• আজ সোমবার, ২০ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৷ ৫ ডিসেম্বর, ২০২২ ৷

বন্দরে মিশুক চালক কায়েস’র লাশ উদ্ধারের ১২ ঘন্টার মধ্যে গ্রেপ্তার ৩

Narayangonj news
❏ রবিবার, অক্টোবর ২, ২০২২ ঢাকা

সুমন আল হাসান, নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি: নারায়ণগঞ্জ বন্দর উপজেলা নবীগঞ্জ উত্তরপাড়া এলাকার মিশুক চালক কায়েস হত্যাকাণ্ডের ১২ ঘণ্টার মধ্যে তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রোববার (২ অক্টোবর) দুপুরে জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে গ্রেফতারের বিষয় নিশ্চিত করেছেন পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল। এর আগে বন্দর থানার বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতাররা হলেন-বন্দর উপজেলার পদুঘর এলাকার মুক্তার হোসেনের ছেলে কাউছার, একই এলাকার সেলিমের ছেলে কামরুজ্জামান শিমুল ওরফে শ্যামল, উপজেলার দক্ষিণ কুল চরিত্র এলাকার রটজা গাজীর ছেলে ফাহিম ওরফে জিকো।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, গত ২৮ সেপ্টেম্বর বুধবার সকাল ৬ টার দিকে নিহত কায়েস (১৬) তার মিশুক নিয়ে বাসা থেকে বের হয়। রাতে বাসায় না ফেরায় পরদিন পরিবারের পক্ষ থেকে বন্দর থানায় একটি ডায়েরী করা হয়। (জিডি নং- ১৩৫৯ তাং- ২৯-০৯-২০২২)।

১ অক্টোবর শনিবার কলাগাছিয়া ইউনিয়নের নরপদী এলাকার পাকা রাস্তার পাশে একটি ঝোঁপ থেকে অটোচালকের হাত পা বাঁধা অবস্থায় অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পরে পরিবারের সদস্যরা এসে নিশ্চিত করে এটি নিখোঁজ মিশুক চালক কায়েসের লাশ।

নিহত কায়েস নবীগঞ্জ নোয়াদ্দা এলাকার মো. কাশেম মিয়ার ছেলে। পরে, এসংক্রান্ত একটি মামলা বন্দর থানায় রুজু করা হয়।

পুলিশ সুপার বলেন,পূর্ব পরিকল্পিতভাবে মিশুকটি পদুঘর থেকে ভাড়া করে সাবদী ব্রিজের নিয়ে গিয়ে মদপান করেন। পরে কলাগাছিয়া ইউপি কান্দাপাড়া থেকে নরপদি গ্রামের পাকা রাস্তার পাশে কালবার্ট সংলগ্ন জনৈক নূর মোস্তফার বালু ভরাটকৃত জমির উত্তর কোণে নিয়ে যান। সেখানে তাকে হত্যা করে ঝোপে হাত-পা বেধে ফেলে দেয়।

তিনি আরো জানান, হত্যাকাণ্ডের ১২ ঘণ্টার মধ্যে জড়িত তিনজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। বাকী আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।