• আজ বৃহস্পতিবার, ১৬ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৷ ১ ডিসেম্বর, ২০২২ ৷

শান্তিরক্ষা মিশনে নিহত জাহাঙ্গীরের বাড়িতে শোকের মাতম


❏ বুধবার, অক্টোবর ৫, ২০২২ দেশের খবর, রংপুর

মো. ফরহাদ হোসাইন, নীলফামারী প্রতিনিধি: জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনের অপারেশন কার্যক্রম পরিচালনাকালে সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিকে নীলফামারীর জাহাঙ্গীর আলমসহ তিন বাংলাদেশী শান্তিরক্ষী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরেক সেনা সদস্য।

সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপবালিকের স্থানীয় সময় সোমবার রাত সাড়ে ৮টায় (বাংলাদেশ সময় সোমবার দিবাগত রাত দেড়টা) বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীদের একটি বহর টহল থেকে ফেরার সময় পথে সন্ত্রাসীদের পেতে রাখা ইমপ্রোভাইজড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইসের (IED) বিস্ফোরণ ঘটে। সঙ্গে সঙ্গে বহরের প্রথম গাড়িটি আক্রান্ত হয়, সেটি ছিটকে ১৫ ফুট দূরে গিয়ে পড়ে। এতে নিহত হন বাংলাদেশী তিন শান্তিরক্ষী সেনা সদস্য।

নিহতদের মধ্যে জাহাঙ্গীর আলম নীলফামারী জেলার ডিমলা উপজেলার সদর ইউনিয়নের দক্ষিণ তিতপাড়া গ্রামের লতিফর রহমানে ছেলে।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে যোগ দেন জাহাঙ্গীর আলম। ১০ মাস আগে মধ্য আফ্রিকান প্রজাতেন্ত্রর ব্যানব্যাট-৮ এলাকার উইক্যাম্পে শান্তিরক্ষী মিশনে যান তিনি। সেনাবাহিনীর একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা মোবাইল ফোনে জাহাঙ্গীর আলমসহ ৩ জন নিহতের বিষয়টি জানিয়েছেন।

এদিকে জাহাঙ্গীর আলমের নিহত হওয়ার খবরে শোকের মাতম বইছে তার পরিবারে। বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন বাবা লতিফর রহমান, বার বার মুর্ছা যাচ্ছেন জাহাঙ্গীর আলমের মা। শোক প্রকাশ করেছেন তার পাড়া প্রতিবেশীরাও।

কান্না করতে করতে জাহাংগীরের মা গোলেনুর বেগম বলছিলেন, “মোর যাদু চাকরি করি আর বাড়িত আসবে না। রোজার ঈদে বাড়িত আসিবার কথা ছিল। তার আগেই লাশ হইলো। এলা কষ্ট মুই কেমন করি সইমু। বিয়া হবার কয়খান মাস হইলো, তাতে মোর বাবাটাক আল্লাহ কাড়ি নিলো। মোর বাবাটাকে আইনা দাও।”

স্ত্রী শিমু আক্তার স্বামীর ছবি বুকে নিয়ে আহাজারি করছেন। মাঝেমধ্যে চিৎকার দিয়ে কাঁদছেন। কেঁদে কেঁদে বারবার বলছিলেন, “বলেছিল এবার ঈদে বাড়ি আসবে, আর আইলো না। লাশ হয়ে ফিরলো।”

জাহাঙ্গীর আলমের বড় ভাই আবুজার রহমান বলেন, “১০ মাস আগে মধ্য আফ্রিকান প্রজাতেন্ত্রর ব্যানব্যাট-৮ এলাকার উইক্যাম্পে শান্তিরক্ষী মিশনে যায় আলম। মঙ্গলবার ভোর ৪টায় মাটিতে পুঁতে রাখা মাইন বিস্ফোরণে আমার ভাইসহ তিন বাংলাদেশি সেনা প্রাণ হারায় বলে সেনাবাহিনীর একজন ঊর্তন কর্মকর্তা জানায় আমাদের পরিবারকে।

এসময় জাহাঙ্গীরের বড় ভাই আবুজার দ্রুত ভাইয়ের মরদেহ ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন।