• আজ শনিবার, ১৮ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৷ ৩ ডিসেম্বর, ২০২২ ৷

আ’লীগের ত্যাগীদের মূল্যায়নের আহ্বান জানিয়েছেন শামীম ওসমান

Narayangonj news
❏ শুক্রবার, অক্টোবর ৭, ২০২২ ঢাকা

সুমন আল হাসান,নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি: আওয়ামী লীগের ত্যাগীদের মূল্যায়নের আহ্বান জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান।

তিনি বলেন,হৃদস্পন্দন ছাড়া যেমন জীবন বাঁচে না, তেমনি শেখ হাসিনার কর্মীরা তথা তৃণমূলই হলো বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের হৃদস্পন্দন। প্রধানমন্ত্রীও তার তৃণমূল কর্মীদের সবচেয়ে বেশী মূল্যায়ন করেন, ভালোবাসেন, সম্মান করেন। তাই যারা বঙ্গবন্ধু পরিবারের জন্য, নেত্রীর জন্য, দলের জন্য নি:স্বার্থভাবে ত্যাগ দিয়ে চলেছেন তাদের মুল্যায়ন সবার আগে করতে হবে।

তিনি বলেছেন, আগামী ২৩ অক্টোবর জেলা ও ২৫ তারিখ মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন। আমি বলবো ত্যাগীদের মূল্যায়ন করুন। মাথা থেকে পা পর্যন্ত যারা আওয়ামী লীগার তাদের মূল্যায়ন করুন।মূল্যায়ন মানে শুধুই পদ-পদবি বা টাকা নয়, সম্মান দিতে হবে।

বৃহস্পতিবার (৬ অক্টোবর) রাতে শহরের ইসদাইরে নারায়ণগঞ্জ ওসমানী স্টেডিয়ামে দলের তৃণমূল নেতাকর্মীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন শামীম ওসমান।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনার বিকল্প শেখ হাসিনাই। তিনি তৃণমূলের নেতাকর্মীদের হৃদয়ে বাস করেন। তার সবচেয়ে বড় প্রমাণ চন্দন শীল। তার দুই পা নেই, বোমা হামলায় পঙ্গু হয়েছেন। শেখ হাসিনা তাকেই জেলা পরিষদের মনোনয়ন দিয়েছেন। এই মনোনয়ন তৃণমূলের সব ত্যাগী নেতাকর্মীদের মনোনয়ন।

তিনি আরও বলেন, জাতির পিতার কন্যা শুধু আওয়ামী লীগের স্পন্দন নন। তিনি আমার সন্তান, আপনার সন্তানের ভবিষ্যত। আমরা আমাদের অবস্থান থেকে চেষ্টা করছি। কিছুদিন আগে জনসভা ডেকেছিলাম। নারায়ণগঞ্জের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় জনসভা ছিল, এটা কত কথা বলা হলো এটা নিয়ে। সেদিন কোথায় লোক শুরু আর কোথায় শেষ তা দেখা যায়নি। এগুলো আমার কথা নয় গণমাধ্যমের কথা। সেদিন ঠিক করেছিলাম আপনাদের সবাইকে নিয়ে বসব। তাই আজকের এই আয়োজন।

তিনি বলেন, আগামীকাল আমি থাকব কিনা জানি না। ছেলেটা অসুস্থ। জাতির পিতার কন্যা বলেছেন আগামী দশ তারিখ আমার বড় ভাই নাসিম ওসমানের নামে সেতু উদ্বোধন করবেন। ঢাকা নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের নাম দিয়েছেন আমার মায়ের নামে। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন আমার বাবা ও দাদা। এমন খুব কম পরিবার আছে যেখানে বাবা এবং ছেলে একসঙ্গে প্রতিষ্ঠাতা। বঙ্গবন্ধু কন্যা আমার মাকে অনেক ভালবাসতেন। ভাষা আন্দোলনের সময় আমার মা এখানে ভূমিকা রেখেছেন।
শামীম ওসমান বলেন, আপনাদের কাছে অনুরোধ অনেক খেলা হচ্ছে, নারায়ণগঞ্জ টার্গেট। এ জায়গাগুলোকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করা হচ্ছে। আমরা মেকাবিলা করব।

শামীম ওসমান বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা বাহিনীকে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার দেওয়ার দাবি জানিয়ে বলেন, আমাদের সেনাবাহিনী, প্রশাসন, র‍্যাব, পুলিশ, বিজিবি আমাদের গর্ব। ভালো খারাপ সব জায়গায় আছে। আমাদের দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর স্যাংশন দেওয়া হয়। কি কারণে স্যাংশন দেওয়া হয় ! জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে এদেশের প্রতিরক্ষা বাহিনীর সুনাম বহু বছরের। এই সেদিন আমাদের সেনাবাহিনীর তিনজন বীর সৈনিক শান্তির জন্য লড়াই করতে করতে শান্তি মিশনে শহীদ হয়েছেন। তাহলে যারা শান্তি প্রতিষ্ঠায় জীবন হারাচ্ছেন সেই বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা বাহিনীকে কি শান্তিতে নোবেল দেয়ার দাবি জানাতে পারি না?

বৃহস্পতিবার রাতে শহরের ইসদাইরে ওসমানী পৌর স্টেডিয়ামে দলের তৃণমূল নেতাকর্মীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন শামীম ওসমান। অনুষ্ঠানে নারায়ণগঞ্জ শহর, বন্দর, ফতুল্লা, সিদ্ধিরগঞ্জ ও সোনারগাঁয়ের প্রায় ৬হাজার তৃণমূল নেতা-কর্মী উপস্থিত ছিলেন।

এসময় শীর্ষস্থানীয় নেতাদের সামনে বিভিন্ন এলাকার কর্মীরা বক্তব্য দেন, অনেকে দেশাত্মবোধক গান পরিবেশন করেন। সবশেষে ছিল ভুড়িভোজ।

উৎসবমুখর এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করায় শামীম ওসমানকে কর্মীরা ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, শামীম ওসমান যেভাবে তৃণমূলকে সম্মানিত করেছেন, সেভাবে দেশের প্রতিটি জেলায় যদি সম্মানিত করা হয় তবে আওয়ামী লীগের তৃণমূলে যে হতাশা ক্ষোভ বিরাজ করছে তা দূর হয়ে যাবে।

শামীম ওসমান বলেন, বাংলাদেশকে নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র হচ্ছে দাবি করে তিনি বলেন, এ দেশের হাতেগোনা রাজাকার ছাড়া আমরা সবাই কিন্তু সৈনিক। আমাদের নেত্রী বারবার বলছেন সারা পৃথিবীর নেতারা মনে করছে দুর্ভিক্ষ হতে পারে। আমাদের নির্দেশ দিয়েছেন এক ইঞ্চি জমিও যেন আমরা ফেলে না রাখি। কয়েকদিন আগে বিদ্যুতের গ্রিড ফেল করল। আমরা কত বিরক্ত হচ্ছিলাম। অথচ আট দশ বছর আগে আমরা প্রতিদিনই এমন ভেগান্তির শিকার হতাম।

এসময় জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের শীর্ষ ও তৃণমূলের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।