• আজ শনিবার, ১৮ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৷ ৩ ডিসেম্বর, ২০২২ ৷

মারপিটের কারণে মাশা আমিনির মৃত্যু হয়নি: ইরানের ফরেনসিক বিভাগ


❏ শনিবার, অক্টোবর ৮, ২০২২ আন্তর্জাতিক

অনলাইন ডেস্ক : ইরানে নীতি পুলিশের হেফাজতে কুর্দি তরুণী মাশা আমিনির মৃত্যুর বিষয়টি নিয়ে নতুন তথ্য প্রকাশ করেছে দেশটির ফরেনসিক বিভাগ।

তাঁরা জানিয়েছে, কোনো ধরেন হাতাহাতি বা মারপিটের কারণে মাশা আমিনির মৃত্যু হয়নি। তাঁর মৃত্যু হয়েছে শারীরিক অসুস্থতার কারণে। বার্তা সংস্থা এএফপির এক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা গেছে।

এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, স্থানীয় সময় শুক্রবার ইরানের ফরেনসিক অর্গানাইজেশন মাশা আমিনির মৃত্যুর কারণ উল্লেখ করল। মাশা আমিনির মৃত্যুর প্রায় ৩ সপ্তাহ পর তাঁর মৃত্যুর বিষয়ে ফরেনসিক প্রতিবেদন প্রকাশ করা হলো।

ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে প্রচারিত ফরেনসিক অর্গানাইজেশনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘মাশা আমিনির মৃত্যু তাঁর মাথায় কিংবা শরীরের অন্য কোনো গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গে গুরুতর আঘাতের কারণে হয়নি।’ ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, ‘মাশা আমিনির মৃত্যু ৮ বছর বয়সে তাঁর মস্তিষ্কে টিউমার অপসারণে করা একটি সার্জারির সঙ্গে যুক্ত।’

এদিকে, ইরানে বিভিন্ন শহরে চলমান বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে পুরো দেশে প্রতিবাদ সমাবেশের ডাক দিয়েছেন দেশটির অধিকারকর্মী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা। গত ২ অক্টোবর ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা বাহিনীর নৃশংস হামলার প্রতিবাদে আগামীকাল শনিবার দেশটির সব বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাবেশের আহ্বান জানিয়েছেন তেহরানের শরিফ ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজির শিক্ষকেরা।

শরিফ ইউনিভার্সিটির ক্যাম্পাসের ভেতরে শান্তিপূর্ণভাবে বিক্ষোভরত অনেক ছাত্রকে আটক করা হয়, যেখানে আইন অনুযায়ী সশস্ত্র বাহিনীর প্রবেশ নিষিদ্ধ। এমনকি শুধু ক্যাম্পাসেই নয়, অনেক শিক্ষার্থীকে তাদের বাড়িসহ অন্যান্য স্থান থেকে আটক করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

এসব ঘটনার প্রতিবাদ বিচ্ছিন্নভাবে না করে সামগ্রিকভাবে সমাবেশ করতে চাইছে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। ইতিমধ্যে দেশটির অনেক স্থানে স্কুলছাত্রীরা বিক্ষোভ করছে, মাথার হিজাব খুলে বাতাসে উড়িয়ে প্রতিবাদ জানাচ্ছে তারা।

অপরদিকে, চলমান বিক্ষোভ দমাতে আরও কঠোর পদক্ষেপ নিচ্ছে ইরানি পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনী। নরওয়েভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা ইরান হিউম্যান রাইটসের দেওয়া তথ্যানুসারে, তিন সপ্তাহ আগে শুরু হওয়া বিক্ষোভে এ পর্যন্ত দেড় শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছে। এ ছাড়া সাংবাদিক, অধিকারকর্মী, শিক্ষকসহ অন্তত ১ হাজার ২০০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি ইরানে নীতি পুলিশের হেফাজতে মাশা আমিনি নামে এক তরুণীর মৃত্যুর ঘটনায় দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ শুরু হয়। ওই তরুণীর মৃত্যুর পর পরিবারের পক্ষ থেকে পুলিশের বিরুদ্ধে তাঁকে মারধরের অভিযোগ করা হয়। তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে কর্তৃপক্ষ।