🕓 সংবাদ শিরোনাম

দরিদ্র মানুষ না খেয়ে মরবে না: পরিকল্পনা মন্ত্রী * চট্টগ্রামে প্রধানমন্ত্রীর উপহার, ২৯ প্রকল্প ও ৪ ভিত্তিপ্রস্তর * মিরাজের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশের অবিশ্বাস্য জয় * ফুলবাড়ীতে গাঁজাসহ এক নারী গ্রেফতার * সৌদিতে পাচারকালে ২৪ লাখ ইয়াবা আটক * ভালুকা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হিসেবে আলোচনার শীর্ষে জামাল * দুই বছর আগে হস্তান্তর হওয়া মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভ অযত্নে অবহেলায় পরিত্যক্ত প্রায় * ফরিদপুর মেডিকেল হাসপাতালে বাড়ছে চুরি-ছিনতাই, নিরব হাসপাতাল প্রশাসন * নীলফামারীতে ট্রাকের ধাক্কায় ও ট্রেনে কাটা পড়ে শিক্ষার্থীসহ নিহত ২ * আমরা উন্নয়ন করি, বিএনপি মানুষ খুন করে: প্রধানমন্ত্রী *

  • আজ রবিবার, ১৯ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৷ ৪ ডিসেম্বর, ২০২২ ৷

এক চোখের দৃষ্টিশক্তি ও এক হাতের কার্যক্ষমতা হারালেন সালমান রুশদি


❏ সোমবার, অক্টোবর ২৪, ২০২২ আন্তর্জাতিক

অনলাইন ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের সন্ত্রাসী হামলায় গুরুতর আহত হওয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক চোখের দৃষ্টিশক্তি ও এক হাতের কার্যক্ষমতা হারিয়েছেন প্রখ্যাত লেখক সালমান রুশদি। খ্যাতিমান এই লেখকের এজেন্ট অ্যান্ড্রু ওয়াইলির বরাতে এ তথ্য জানিয়েছে বিবিসি।

গত আগস্টে নিউইয়র্কে এক অনুষ্ঠানে ছুরিকাঘাতের শিকার হন ৭৫ বছর বয়সী রুশদি। তাঁর জখম এতটাই গুরুতর ছিল যে ভেন্টিলেটর সাপোর্টে (কৃত্রিম উপায়ে শ্বাস প্রশ্বাস চালু রাখার প্রক্রিয়া) রাখা হয়েছিল। মৃত্যুর সঙ্গে লড়ে প্রাণে বেঁচে যান তিনি।

স্প্যানিশ পত্রিকা এল পাইসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে রুশদির এজেন্ট অ্যান্ড্রু ওয়াইলি ওই হামলা কতটা নিষ্ঠুর ছিল, তা ব্যাখ্যা করেছেন। ওয়াইলি বলেন, ‘তাঁর বুকে ১৫টি গভীর ক্ষত রয়েছে এবং তিনি এক চোখ হারিয়েছেন। ঘাড়ে তিনটি গুরুতর জখম ছিল। তাঁর বাহুর স্নায়ু কেটে যাওয়ায় এক হাত অক্ষম হয়ে গেছে।’

রুশদি এখনো হাসপাতালে আছেন কিনা, এমন প্রশ্নে ওয়াইলি বলেন, ‘তাঁর অবস্থান সম্পর্কে আমি জানাতে পারব না। তিনি যে বেঁচে আছেন, এটাই এখন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।’

ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ লেখক সালমান রুশদি গত ১২ আগস্ট নিউইয়র্কের শিতৌকা ইনস্টিটিউটে এক সাহিত্যসভায় ছুরিকাঘাতের শিকার হন। এর পর রুশদিকে আক্রমণকারী সন্দেহে ২৪ বছর বয়সী হাদি মাতারকে গ্রেপ্তার করে নিউইয়র্ক পুলিশ। তাঁর বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টা মামলা দায়ের করা হয়।

১৯৪৭ সালের ১৯ জুন ভারতের তৎকালীন বোম্বে (বর্তমান মুম্বাই) শহরে জন্মগ্রহণ করেন সালমান রুশদি। ১৪ বছর বয়সে তিনি যুক্তরাজ্যের চলে যান। ক্যামব্রিজের কিংস কলেজ থেকে ইতিহাসে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। পরে দেশটির নাগরিকত্ব পান তিনি। একটি বিজ্ঞাপনী সংস্থায় কপিরাইটার হিসেবে চাকরি শুরু করলেও পরে উপন্যাস ও নন-ফিকশন লেখায় মনোযোগ দেন রুশদি।

১৯৮১ সালে ‘মিডনাইটস চিলড্রেন’ উপন্যাসের জন্য বুকার পুরস্কার জেতেন তিনি। তবে ১৯৮৮ সালে তাঁর চতুর্থ উপন্যাস ‘স্যাটানিক ভার্সেস’ লিখে ব্যাপক সমালোচনার জন্ম দেন। বইটিতে ইসলাম ধর্মের নবী হজরত মুহাম্মদকে (সা.) অবমাননা করা হয়েছে এবং আপত্তিকর মন্তব্য করা হয়েছে অভিযোগ এনে পরের বছর ইরানের তৎকালীন সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ রুহুল্লা খোমেনি সালমান রুশদিকে হত্যার ফতোয়া জারি করেন। গত ২০ বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করছেন রুশদি।