• আজ রবিবার, ১৯ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৷ ৪ ডিসেম্বর, ২০২২ ৷

স্বামী-সন্তান ও নানাকে নিয়ে কেক কাটলেন পরীমণি


❏ মঙ্গলবার, অক্টোবর ২৫, ২০২২ বিনোদন

বিনোদন ডেস্ক: বরাবরের মতো এবারো নিজের জন্মদিন উদযাপনের জন্য আয়োজনের কোনো কমতি রাখেননি ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় অভিনেত্রী পরীমনি।

সোমবার (২৪ অক্টোবর) রাজধানীর বসুন্ধরার আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টারে সন্ধ্যায় এই নায়িকার জন্মদিনের অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার কথা থাকলেও ঘূর্ণিঝড় ‘সিত্রাং’ এর প্রভাবে যথা সময়ে অনুষ্ঠান আয়োজন করা সম্ভব হয়নি। বৃষ্টি বিঘ্নিত দিনেও অভিনেত্রীকে শুভেচ্ছা জানাতে হাজির হোন তার ভক্ত ও শুভাকাক্ষিরা।

পরীমনির মা হওয়ার পর এটাই তার প্রথম জন্মদিন। অভিনেত্রীর ইচ্ছেও ছিলো জাকজমকভাবে দিনটি পালন করবেন। কিন্তু এদিন সকাল থেকেই ঝরছিল বৃষ্টি। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তা বেড়েছে। তবে ঝড়-বৃষ্টির দাপটের পরও জন্মদিন পালনের আয়োজনে কমতি রাখেননি পরী। কিন্তু এবার অন্যান্যবারের মতো উদযাপনের জৌলুসটা ছিল না।

ঢাকায় সিনেমার এই নায়িকার জন্মদিন অনুষ্ঠান সন্ধ্যায় শুরু হওয়ার কথা থাকলেও তা শুরু হয় রাত সাড়ে ১১টায়। সন্তানকে কোলে নিয়ে স্বামী ও নানার সঙ্গে জন্মদিনের কেক কাটেন পরীমণি। কিন্তু অনুষ্ঠানে উপস্থিতি একেবারেই কম ছিল। শুভাকাঙ্ক্ষী যারা হাজির হয়েছিলেন প্রাকৃতিক দুর্যোগ সহ্য করে তাদের নিয়েই জীবনের আরো একটি বছর পার করলেন অভিনেত্রী।

পরীর এবারের জন্মদিনে পুরুষরা পরেছিলেন অ্যাকোয়া রঙের জামা ও ড্রেস কোড হিসেবে মেয়েদের জন্য সাদা রং নির্ধারণ করা ছিলো। রাজধানীর বসুন্ধরা ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারে আয়োজিত অনুষ্ঠানে পরীমনি হাজির হলে শুভাকাঙ্ক্ষীরা তাকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানান। মিষ্টি হেসে সেই শুভেচ্ছার জবাব দেন নায়িকা।

পরীমণির জন্মদিন উপলক্ষে এদিন রাতে উন্মোচন করা হয় পরীমণি অভিনীত ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ সিনেমার একটি গান। এ সময় ছবিটির পরিচালক আবু রায়হান জুয়েল, নায়ক সিয়াম আহমেদসহ ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ টিম উপস্থিত ছিলেন।

জন্মদিনের রাতে দর্শকদের জন্য যে দ্বিতীয় চমক অপেক্ষা করছিল, তা কেউ ঠাউর করতে পারেনি। এসময় পরীমণিকে নিয়ে নির্মিত একটি ডকুফিল্ম দেখানো হয়। এটাকে ডকুফিল্ম না বলে লাভ ফিল্মও বলা যেতে পারে।

এই ফিল্মে পরীমণি নিজের বয়ানে তুলে ধরেন রাজের সঙ্গে তার প্রেমের গল্প। এসময় লাজুক কণ্ঠে পরীমণি বলে চলেন রাজের মায়ায় পড়ে রাজ্য পেয়ে যাওয়ার গল্প। রাজ, রাজ্য আর নানা- এই তিন খুঁটির গল্প শুনে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন আমন্ত্রিত অতিথিরা। নিজেদের পরস্পরকে জড়িয়ে ধরে সেই আবেগঘন মুহুর্তকে আরও আবেগায়িত করে তুলেন পরী-রাজ।

নিজের জন্মদিনের অনুভূতি জানাতে গিয়ে পরীমণি বলেন, ‘ঝড়-বৃষ্টি উপেক্ষা করে কাছের মানুষেরা যে আমার জন্মদিনে এসেছেন, সেজন্য আমি হ্যাপি। হ্যাপি বার্থ ডে টু মি।’

এদিকে জানা গেছে, আগামী বছর থেকে এভাবে ঘটা করে জন্মদিন পালন করবেন না পরী। একরত্তি ছেলের জন্মদিনটা বড় করে পালন করতে চান।