• আজ রবিবার, ১২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৷ ২৭ নভেম্বর, ২০২২ ৷

কক্সবাজার থেকে ফেরার পথে মাইক্রোবাস উল্টে প্রাণ গেল বাবা-মেয়ের


❏ রবিবার, অক্টোবর ৩০, ২০২২ ঢাকা, দেশের খবর

সময়ের কণ্ঠস্বর, শরীয়তপুর: কক্সবাজার থেকে ফেরার পথে শরীয়তপুরের নড়িয়ায় মাইক্রোবাস খাদে পড়ে বাবা-মেয়ে নিহত হয়েছে। আজ রোববার ভোররাত ৩টার দিকে ঢাকা-শরীয়তপুর সড়কের জামতলা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত রাশেদুল হক ব্যাপারী (৪২) শরীয়তপুর সদর উপজেলার আঙ্গারিয়া ইউনিয়নের দাতপুর গ্রামের আবুল হোসেন ব্যাপারীর ছেলে। তিনি শরীয়তপুর জজকোর্টের আইনজীবী হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

রাশেদুলের দুই বছরের মেয়ে মাইশাও এ ঘটনায় নিহত হয়েছে। আহত হয়েছেন রাশেদুলের স্ত্রী মিলি আকতার, তাঁর বড় মেয়ে মেবিন আকতার ও গাড়িচালক কামরুল হাসান।

স্থানীয় ও পরিবার সূত্রে জানা যায়, শনিবার কক্সবাজার থেকে পরিবার নিয়ে শরীয়তপুর আসছিলেন রাশেদুল হক রাশেদ। পথে নড়িয়ার জামতলা এলাকায় পৌঁছালে গাড়ি উল্টে সড়ক থেকে খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই রাশেদ ও তার দুই বছরের মেয়ে মাইশা মারা যায়। স্ত্রী-মেয়েসহ তিনজন গুরুতর আহত হয়। তাদের আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

রাশেদুল হক রাশেদের ভাগনে জাহিদ হোসেন বলেন, আমার মামা তার পরিবার নিয়ে গতকাল কক্সবাজার থেকে গ্রামের বাড়ি ফিরছিলেন। পদ্মা সেতু এলাকায় এসে মামা গাড়ির চালককে পেছনে বসতে বলে নিজে গাড়ি চালাচ্ছিলেন। জাজিরা মহাসড়কের দাতপুর এলাকায় পৌঁছালে গাড়িটি খাদে পড়ে যায়।

আহত চালক কামরুল হাসান বলেন, গত বুধবার আমরা কক্সবাজার যাই। শরীয়তপুর থেকে রাশেদুল হক স্যার, ম্যাডাম ও তাদের দুই মেয়ে মেবিন এবং মাইশাকে নিয়ে রওনা হই। ভ্রমণ শেষে আমরা শরীয়তপুরে ফিরছিলাম। ঢাকায় আসার পরে আমাকে পাশে বসিয়ে স্যার নিজেই ড্রাইভ করছিল। কিছু দূর যাওয়ার পরে আমি বারবার স্যারকে নিষেধ করেছি। ম্যাডামও তাকে ড্রাইভ করতে নিষেধ করেছে। সে বলেছে সমস্যা নেই। জাজিরা পার হয়ে নড়িয়ার জামতলা আসলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে যায় মাইক্রোবাস।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের শরীয়তপুরের উপসহকারী পরিচালক মুহাম্মদ সেলিম মিয়া গণমাধ্যমকে বলেন, আমরা খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে যাই। পানিতে পড়ে থাকা একটি মাইক্রোবাস টেনে তুলি।