• আজ রবিবার, ১২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৷ ২৭ নভেম্বর, ২০২২ ৷

ইউএনওর স্বামীকে মারধরের ঘটনায় কারাগারে অভিযুক্ত যুবক, ৩ আনসার প্রত্যাহার


❏ রবিবার, অক্টোবর ৩০, ২০২২ রাজশাহী

বগুড়া প্রতিনিধি : বগুড়ার সোনাতলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাঈদা পারভিনের স্বামীকে মারধরের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে শামিম আলমকে (৪৫) কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বয়স কম বিবেচনায় শামিম আলমের ছেলে আলিফকে থানা থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়। এদিকে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে ইউএনওর বাসভবনে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা তিন আনসার সদস্যকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

সোনাতলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈকত হাসান জানান, ইউএনওর গাড়িচালক ফেরদৌস হোসেন শনিবার রাতে আটক শামিম আলমের নামে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। বয়স ১৮-এর নিচে হওয়ায় মামলায় শামিম আলমের ছেলে আলিফের নাম না দেওয়ায় তাঁকে থানা থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়। আজ রোববার গ্রেপ্তার শামিমকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে বগুড়া জেলা আনসার অ্যাডজুটেন্ট ফিরোজ আহম্মেদ জানান, সোনাতলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাইদা পারভীনের লিখিত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে রোববার নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা তিনজন আনসার সদস্যকে প্রত্যাহার করে নতুন করে তিনজন আনসার সদস্য নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

ইউএনও সাঈদা পারভিন বলেন, ‘১০ জন আনসার সদস্যের একটি টিম সময় ভাগাভাগি করে নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করে থাকে। শনিবারের ঘটনার সময় গেটে ও বাসায় দায়িত্বে ছিলেন জামিরুল, ইমারত ও মোখলেস নামের তিন আনসার সদস্য। আমি তাঁদের বিরুদ্ধে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগ আনলে তাঁদের প্রত্যাহার করা হয়।’

উল্লেখ্য, গত শনিবার সন্ধ্যায় সোনাতলা উপজেলা পরিষদ চত্বরে ইউএনওর বাসভবনের সামনে ব্যাটমিন্টন খেলাকে কেন্দ্র করে ইউএনওর স্বামী আল আমিন শিকদারকে মারধর করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম বুলুর ছেলে শামিম আলম। এ ঘটনায় তাৎক্ষণিক পুলিশ শামিম আলম ও তাঁর ছেলে আলিফকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।