• আজ রবিবার, ১৯ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৷ ৪ ডিসেম্বর, ২০২২ ৷

বক্তার ওয়াজ নিয়ে সমালোচনায় জুতা নিক্ষেপ, ক্ষমা চাইলেন সেই সাবেক এমপি


❏ সোমবার, অক্টোবর ৩১, ২০২২ বিনোদন

ছাইদুর রহমান নাঈম, কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি: কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে বক্তার ওয়াজ নিয়ে স্টেজে দাঁড়িয়ে সমালোচনা করায় বিক্ষুদ্ধ হয় উপস্থিত জনতা। পরে তাকে লক্ষ করে জুতা নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে।

২৯ অক্টোবর শনিবার রাতে এই ঘটনাটি ঘটে। মেজর অব. আখতারুজ্জামান রঞ্জন কিশোরগঞ্জ ২ আসনের বিএনপির দলীয় সংসদ সদস্য ছিলেন। বর্তমানে বিএনপি থেকে তিনি বহিস্কৃত। নিজ প্রতিষ্ঠিত গচিহাটা কলেজ মাঠে মাহফিলটি হয়েছিল৷ এতে তিনি প্রধান অতিথি ছিলেন।

ঘটনার পরদিন শুধু কিশোরগঞ্জে সীমাবদ্ধ থাকেনি। বিভিন্ন মিডিয়ার প্রচারে সারাদেশে আলোচ্য বিষয় হয়ে উঠে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া আসতে শুরু করে। বিষয়টি নিয়ে মেজর আখতার নিজের অবস্থানে অনড় থেকে পরদিন রবিবার ফেইসবুকে একটি পোস্ট দিলে বিষয়টি আরো জটিল হয়।

উদ্ভুত পরিস্থিতি নিয়ে ৩০ অক্টোবর রবিবার রাতে ফেইসবুক ভিডিও বার্তা দেন। এবং তাতে তিনি বলেন, ‘অমি আজ ব্যক্তিগত কাজে ঢাকা থেকে চট্রগ্রামে এসেছি। সারাদিন কাজে ব্যস্ত ছিলাম। রাত ৮ টায় ঘরে ফিরে গোসল করে খাওয়ার পরে হযরত আমানত শাহ (র:) মাজার জেয়ারত করতে এলাম।

আমার বক্তব্যে আপনারা কষ্ট পেয়েছেন আহত হয়েছেন তার জন্য ক্ষমা চাচ্ছি। আমি আশা করবো তারপরেও যদিও আপনাদের কোন কথা থাকে তাহলে আমাকে ডেকে নিয়ে আপনাদের সামনে কথা বলার সুযোগ দিবেন। আপনার যখন যেখানে ডাকবেন- সেখানেই উপস্থিত হব। আবারো আমার বক্তব্যের জন্য আপনাদের সবার কাছে বিশেষ করে যারা তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন – তাদের সবার কাছে ক্ষমা চাচ্ছি। সবাই ভাল থাকেন।

এ বিষয়ে মাহফিলের আলোচক মুফতি আরিফ বিন হাবিব বলেন, ‘আলোচনা সমাপ্তি টেনে শ্রদ্ধেয় মেজর সাহেব আমার সাথে হাসিমুখে মুসাফাহা করলেন, তারপর তিনি মাইক নিয়ে হাসিখুশি আলোচনা শুরু করলেন, কিছুক্ষণ বসে থেকে বিদায় নিয়ে চলে আসলাম। আমি আধা কিলোমিটার রাস্তা অতিক্রম করার পর কেউ একজন ফোন করে বললেন যে মাহফিলে গন্ডগোল হয়েছে ইত্যাদি (যা আপনারা মিডিয়া তে দেখেছেন) আলোচনায় আমার নিজস্ব কোন মতামত ছিলো না। গতকাল মিডিয়া আমার বয়ান রেকর্ড করেছে, আপনারা পুর্ন বয়ানটি হয়তো পেয়ে যাবেন ইনশাআল্লাহ। যদি কোন ভুল পেয়ে থাকেন আমাকে জানাবেন আমি শুধরে নিব ইনশাআল্লাহ।

উল্লেখ্য, শনিবার (২৯ অক্টোবর) রাতে উপজেলার সহশ্রাম ধূলদিয়া ইউনিয়নের গচিহাটা কলেজ মাঠে স্থানীয় ইমাম ও ওলামাদের আয়োজনে শনিবার রাতো এক ওয়াজ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। এতে বিশেষ বক্তা হিসেবে ওয়াজ করেন বর্তমান সময়ের তুমুল আলোচিত জনপ্রিয় বক্তা ঢাকা লালবাগ জামিয়া কুরআনিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক শায়খুল হাদীস মাওলানা মুফতি আরিফ বিন হাবিব।

আরিফ বিন হাবিব তার ওয়াজে সমসাময়িক কিছু ইসলামিক ইবাদত নিয়ে আলোচনা করেন। তিনি সেখানে বলেন, ‘আমরা যা পালন করি অনেক বিষয়ই কুরআন ও হাদিসে নেই। তাই সহীহভাবে ইসলাম পালন করতে হবে।’

তার বক্তব্যের পরই মঞ্চে মাইক নিয়ে দাড়িয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য মেজর (অব) আখতারুজ্জামান রঞ্জন। তিনি বলেন, ‘হুজুর যা বলছেন তা অনেকটাই ভুল’। অনেক কথা মিথ্যা বলেছেন।’

মূলত এই বক্তব্যটুকু নিয়েই সমস্যা সৃষ্টি হয়। এসময় উপস্থিত জনতা বার বার তাকে মাইক ছেড়ে দিতে অনুরোধ করলেও তিনি কোন তোয়াক্কা না করে নিজের ইচ্ছে মতো কথা বলতে শুরু করেন। এসময় জনতাকে ধমকের গলায় চুপ থাকতেও হুংকার ছাড়েন। একপর্যায়ে উত্তেজিত জনতা আখতারুজ্জামানকে লক্ষ্য করে জুতা নিক্ষেপ করেন। পরে জনতার চাপে আয়োজক কমিটি তাকে মঞ্চ থেকে নামিয়ে নেন।

ওয়াজে উপস্থিত কয়েকজন বলেন, ‘ওনার (মেজর আখতারের) ওয়াজ বুঝতে কোন সমস্যা হলে পড়ে বিষয়টি বুঝে নিতে বা আলোচনা করতে পারতেন৷ হুজুরকে বসিয়ে মাইক হাতে নিয়ে তিনি তাচ্ছিল্য করেছেন। এবং ওয়াজের সুন্দর পরিবেশকে নষ্ট করেছেন। ওনি মূলত নিজের পন্ডিত্ব জাহির করতে চেয়েছেন। ইসলামী শিক্ষা ছাড়া ওনি কিভাবে আলেমের বক্তব্য মিথ্যা একথা বলতে পারেন?।

এদিকে জুতা নিক্ষেপের ঘটনা অস্বীকার করে সাবেক সংসদ সদস্য আখতারুজ্জামান রঞ্জন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘বিষয়টি এমন নয়। আমি মাইক নিয়ে মুসল্লিদের শান্ত করার চেষ্টা করি। কিন্তু তারা আরও উত্তেজিত হয়ে পড়েন। আমার বক্তব্য নিয়ে ভুলবোঝাবুঝি হয়েছে।’