• আজ রবিবার, ১২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৷ ২৭ নভেম্বর, ২০২২ ৷

নভেম্বরেও বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড়ের সম্ভাবনা


❏ বুধবার, নভেম্বর ২, ২০২২ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক: ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের মতো চলতি নভেম্বরেও একটি ঘূর্ণিঝড় হতে পারে। বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

মঙ্গলবার (১ নভেম্বর) আবহাওয়া অধিদপ্তরের ঢাকার ঝড় সতর্কীকরণ কেন্দ্রে এবং ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কমিটির নিয়মিত বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। অধিদপ্তরের পরিচালক ও বিশেষজ্ঞ কমিটির চেয়ারম্যান মো. আজিজুর রহমান এতে সভাপতিত্ব করেন।

বৈঠক শেষে জানানো হয়, নভেম্বর মাসে সামগ্রিকভাবে দেশে স্বাভাবিক বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া বঙ্গোপসাগরে ১ থেকে ২টি লঘুচাপ সৃষ্টি হতে পারে। যার মধ্যে একটির ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নেওয়ার সম্ভাবনা আছে।

বঙ্গোপসাগরের নতুন করে কোনো ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টি হলে এর নাম হবে ‘ম্যান্দোস (Mandous)’। নামটি সংযুক্ত আরব আমিরাতের দেওয়া।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ মনোয়ার হোসেন সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘এটা পোস্ট মনসুন সিজন। এ সময়ে সাইক্লোন বা লো প্রেসার সৃষ্টি হতে হতে পারে। সিডর কিন্তু হয়েছিল ২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বর। চলতি মাসের মান্থলি যে ফোরকাস্ট সেখানে এটা দেয়া হয়েছে।’

তবে লঘুচাপ বা ঘূর্ণিঝড়ের বিষয়ে এখনও সুনির্দিষ্ট করে কিছু বলার সময় আসেনি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এখন কোনো লো ফরমেশন (লঘুচাপ) নেই। তবে আমাদের যে ক্লাইমেট্রোলোজি তাতে দেখা যায়, এ সময় ফরমেশন হতে পারে। তাছাড়া আরও কিছু বিষয় বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, লো প্রেসার এরিয়া সৃষ্টি হতে পারে এবং সেটা ঘূর্ণিঝড়েও রূপ নিতে পারে।’

নভেম্বরের মধ্যভাগের দিকে সাধারণত এমন সৃষ্টি হতে পারে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এটা তৃতীয় সপ্তাহের পরে গিয়ে তেমন দেখাও যায় না।’

মনোয়ার হোসেন বলেন, ‘লো ফরমেশন (লঘুচাপ) তৈরি হলে আমাদের শুরুতে সেটা ডিক্লেয়ার করতে হবে। এরপর সেটা ওয়েল মার্কড লো (সুস্পষ্ট লঘুচাপ), এরপর ডিপ্রেশন (নিম্নচাপ), ডিপ ডিপ্রেশন (গভীর নিম্নচাপ) পর্যায়গুলো পেরিয়ে সাইক্লোন বা ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়। তাই এত আগে সুনিষ্টভাবে ধরনটি কেমন হতে পারে তা বলার সুযোগ নেই।’