• আজ রবিবার, ১২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৷ ২৭ নভেম্বর, ২০২২ ৷

রিজার্ভ কোন খাতে খরচ হচ্ছে, হিসাব দিলেন প্রধানমন্ত্রী


❏ শনিবার, নভেম্বর ১২, ২০২২ প্রধান খবর

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক: রিজার্ভ নিয়ে আলোচনার মধ্যে এই অর্থ কোন কোন খাতে খরচ হচ্ছে, তার হিসাব দিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা; বলেলেন, অর্থ অপচয় তার সরকার করে না।

“টাকা কেউ চিবিয়েও খায়নি, গিলেও খায়নি, নিয়েও যায়নি”- এ মন্তব্য করে তিনি বলেছেন, বিএনপি ক্ষমতায় থাকতে দুর্নীতি করেছিল বলেই তারা দুর্নীতির সন্দেহ করছে।

শনিবার ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পের নির্মাণ কাজ উদ্বোধনের অনুষ্ঠানে রিজার্ভ নিয়ে কথা বলেন সরকার প্রধান। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই কাজ উদ্বোধন করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘রিজার্ভের টাকা গেল কোথায়-’ বিরোধী দল থেকে প্রায় প্রশ্ন করে, এর সাথে সারা বাংলাদেশে একটা অপপ্রচার চালানোর চেষ্টা করে। তাদের আমি বলতে চাই, বিএনপি যখন ক্ষমতায় ছিল তখন রিজার্ভ ছিল মাত্র ২.৯ বিলিয়ন ইউএস ডলার। ২০০১ থেকে ২০০৮ পর্যন্ত এটা বৃদ্ধি পেয়েছিল মাত্র ৫ বিলিয়নের মতো। এ জায়গা থেকে আমরা ৪৮ বিলিয়ন পর্যন্ত বৃদ্ধি করতে সক্ষম হই। করোনা ভাইরাসের কারণে যোগাযোগ, যাতায়াত, আমদানি সব কিছু প্রায় বন্ধ ছিল। যখন যোগাযোগটা খুলে গেছে তখন আমাদের আমদানি করা, বিশেষ করে করোনা ভাইরাস ও ইউক্রেন-রাশিয়ার কারণে মুদ্রাস্ফীতি বেড়েছে। যে মন্দা দেখা দিয়েছে, তার আঘাতটা তো আমাদের দেশে এসে পড়েছে। আজকে রিজার্ভের টাকা থেকে আমদানি ব্যয় মেটাতে হচ্ছে, পাশাপাশি আমরা বিনাপয়সায় ভ্যাকসিন দিয়েছি। করোনা পরীক্ষাও বিনা পয়সায় করেছি। পৃথিবীর কোনো উন্নত দেশও বিনা পয়সায় টেস্টিংও করেনি, ভ্যাকসিনও দেয়নি। আমরা নগদ টাকা দিয়ে ভ্যাকসিন কিনি, এরপরে কিছু অনুদান পেয়েছি।

তিনি আরও বলেন, খাদ্যদ্রব্যের দাম সারা বিশ্বে বেড়ে গেছে, জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে গেছে, ভোজ্যতেল, গম, ভুট্টা, ডাল, যা কিছু আমাদের আমদানি করতে হচ্ছে দাম বেড়েছে। চাল আমরা উৎপাদন করছি, খাদ্যে আমরা স্বয়ংসম্পূর্ণ, তারপরে আমাদের কিছু আমদানি করতে হয়। বন্যায় যখন ফসল নষ্ট হলো তখন চাল আমদানি করতে হয়েছে। আমরা যতটুকু খরচ করেছি, তা জনগণের কল্যাণে, জনগণের স্বার্থে করা হয়েছে। জনগণের খাদ্য কেনা, ক্যানসারের ওষুধ কেনা, জনগণের মঙ্গলের জন্য আমাদের করতে হয়েছে। সার, জ্বালানি তেল, বিদ্যুৎ আমাদের ক্রয় করতে হচ্ছে। আমাদের রিজার্ভের টাকা দিয়ে আমরা বিমান ক্রয় করেছি। নদী ড্রেসিং আমাদের নিজেদের রিজার্ভের টাকা দিয়ে করেছি। কিছু কিছু বিনিয়োগ করেছি এই কারণে, আমরা যদি অন্য দেশের ব্যাংক থেকে লোন নেই, আমাকে সুদসহ সেই ডলার পরিশোধ করতে হয়।

সরকারপ্রধান বলেন, শ্রীলংকা যখন অর্থনৈতিক সংকটে পড়ে তাদেরও কিছু টাকা আমরা ধার দিয়েছি। এখান থেকে কেউ পয়সা তুলে নিয়ে চলে যায়নি।

সবাইকে উৎপাদনে মনোযোগী হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, করোনা, ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধসহ নানা কারণে প্রত্যেকটা জিনিসের দাম-পরিবহন খরচ বেড়েছে। এজন্য নিজেদের সফল উৎপাদন করতে হবে। খাদ্য উৎপাদন, পুষ্টি নিশ্চয়তার ব্যবস্থা নিতে হবে। আমাদের মাটি মানুষ আছে, আমরা তা করতে পারব। যাদের নিজের জমি আছে সেখানে যাতে চাষ হয় সে ব্যবস্থা নেবেন। যদি কখনো বিশ্বে দুর্ভিক্ষ দেখা দেয় আমাদের বাংলাদেশে যেন সেই ধাক্কা কোনোভাবেই না লাগে। আমাদের সাবধানতা আমাদেরই নিতে হবে।