• আজ সোমবার, ১৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ ৷ ২৮ নভেম্বর, ২০২২ ৷

পাকিস্তানের স্বপ্ন ভেঙে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড


❏ রবিবার, নভেম্বর ১৩, ২০২২ খেলা, প্রধান খবর

স্পোর্টস আপডেট ডেস্ক: স্বপ্নের চোরাবালিতেই এ ক’দিন হাবুডুবু খেয়েছে পাকিস্তান। রোমাঞ্চ ঘিরে ধরেছে তাদের, স্বপ্নের সীমানায় হাজির হয়েছে ১৯৯২ বিশ্বকাপ।

বাবর আজম কি ইমরান খান হবেন? এমন কথা এসেছে। সংবাদ সম্মেলনের ভরা মজলিসে বাবরকে জানানো হয়েছে, ‘ফতেহ আজম’ বা জয়ী নেতা থেকে এক ধাপ দূরে দাঁড়িয়ে তিনি।

পাকিস্তানের ‘কুদরত-ই নিজাম’ অবশ্য ফাইনালে থামিয়ে দিয়েছে ইংল্যান্ড। লো স্কোরিং ম্যাচে লড়াই হয়েছে বটে। তবে দিনশেষে জয় পেয়েছে ইংল্যান্ডের ‘প্রসেস’। দারুণ বোলিংয়ের পর ব্যাটিংয়ে শুরুতে খেই হারিয়েছে তারা। তবে দিনশেষে অভিজ্ঞতা, ধৈর্য আর দলের গভীরতায় জয় পেয়েছে ইংল্যান্ড।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের অষ্টম আসরের ফাইনালে স্টোকসের ব্যাটে পাকিস্তানকে ৫ উইকেটে হারিয়ে বিশ্বকাপ জিতল ইংল্যান্ড।

এ জয়ে দীর্ঘ ১২ বছর পর পল কলিংউডের উত্তরসূরি হিসেবে ইংলিশদের হয়ে দ্বিতীয়বারের মতো ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত সংস্করণের শিরোপা জিতল জস বাটলারের নেতৃত্বাধীন ‘থ্রি লায়ন্স’।

রোববার (১৩ নভেম্বর) মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টায় ম্যাচটি শুরু হয়। টস হেরে আগে ব্যাট করে পাকিস্তান ৮ উইকেটে ১৩৭ রান সংগ্রহ করে। জবাবে ইংল্যান্ড ৬ বল ও ৫ উইকেট হাতে রেখে ১৩৮ রান করে ম্যাচে জয় তুলে নেয়। সেই সঙ্গে ওয়েস্ট ইন্ডিজের পর দ্বিতীয় দল হিসেবে দুইবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শিরোপা ঘরে তোলে ইংলিশরা।

পাকিস্তানের দেয়া টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ৭ রানেই উইকেট হারায় ইংল্যান্ড। সেমিফাইনালে ভারতীয় বোলারদের পাড়া মহল্লার বোলার বানিয়ে ফেলা ব্যাটার অ্যালেক্স হেলসকে দুর্দান্ত বোল্ড করেন শাহিন শাহ আফ্রিদি। দলীয় ৩২ রানে ফিল সল্টকে ইফতিখারের ক্যাচ বানিয়ে ইংলিশ শিবিরে দ্বিতীয় ধাক্কা দেন হারিস রউফ। তৃতীয় উইকেটে অধিনায়ক বাটলার অলরাউন্ডার বেন স্টোকসকে নিয়ে ১৩ রানের জুটি গড়েন। দলীয় ৪৫ রানে বাটলারকে উইকেটের পেছনে রিজওয়ানের ক্যাচ বানিয়ে প্যাভিলিয়নের পথ দেখান হারিস রউফ।

টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে পাওয়ারপ্লের সুবিধা নিতে ব্যর্থ হয় পাকিস্তান। তাই রান বাড়াতে ইংলিশ বোলারদের ওপর আগ্রাসী হয়ে উঠেছিলেন দুই ওপেনার। চতুর্থ ওভারের প্রথম বলে ওকসকে ছক্কা মারেন রিজওয়ান। পরের ওভারে তাকে ফেরত পাঠান কুরান। কুরানের ওয়াইড লাইনের বল তার ব্যাটে লেগে স্টাম্পে আঘাত করে। ১৪ বলে ১ ছয়ে ১৫ রান করে আউট হন রিজওয়ান। তখন পাকিস্তানের দলীয় রান মাত্র ২৯।

দলীয় ৪৫ রানে ১২ বল খেলে ৮ রান করে বিদায় নেন মোহাম্মদ হারিস। আদিল রশিদের বলে স্টোকসের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তিনি। তৃতীয় উইকেটে বাবর ও শান মাসুদ ইনিংস মেরামতের চেষ্টা চালান। কিন্তু দলীয় ৮৪ রানে বাবর আদিল রশিদের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হন। বাবরের বিদায়ের পর রানের খাতা খোলার আগেই ইফতিখারকে বিদায় করেন স্টোকস। ইফতিখার ৬ বল থেকে ০ রান করেন।

পঞ্চম উইকেটে শান মাসুদ ও শাদাব খান স্কোরবোর্ড সচল রাখার চেষ্টা চালান। দলীয় ১২১ রানে ২৮ বলে ৩৮ রান করা শান মাসুদকে আউট করে ৩৬ রানের জুটি ভাঙেন কুরান। শানের বিদায়ের ২ রান পর শাদাবকে নিজের শিকার বানান ক্রিস জর্ডান। তখন দলীয় রান ১২৩। মোহাম্মদ নওয়াজও বেশিক্ষণ থাকতে পারেননি। ৭ বলে ৫ রান করে দলীয় ১২৯ করে কুরানের তৃতীয় শিকারে পরিণত হন নওয়াজ। বিশ্বকাপে ১৩ উইকেট নিয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উইকেট শিকারিতে পরিণত হন কুরান। দলীয় ১৩১ রানে মোহাম্মদ ওয়াসিমকে বিদায় করে ম্যাচে দ্বিতীয় উইকেট শিকার করেন জর্ডান। শেষ পর্যন্ত পাকিস্তান ৮ উইকেট হারিয়ে মাত্র ১৩৭ রান সংগ্রহ করে। জিততে হলে ইংল্যান্ডকে করতে হবে ১৩৮ রান।

ইংল্যান্ডের হয়ে স্যাম কুরান ৩টি, ক্রিস জর্ডান ও আদিল রশিদ ২টি এবং বেন স্টোকস একটি উইকেট লাভ করেন।