এইমাত্র
  • জাতীয় পার্টিকে বলা হয় গৃহপালিত রাজনৈতিক দল: জিএম কাদের
  • মার্কিন প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বিএনপির নেতাদের বৈঠক
  • সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারি দিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী
  • ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থীর আত্মহত্যা
  • গালে হাত দিয়ে একাকিত্ব প্রকাশ করলেন মাহি
  • সরকার দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হয়ে বিএনপির উপর দায় চাপাচ্ছে: রিজভী
  • স্বাস্থ্যসেবা সহজ করতে সরকার নিরন্তর প্রয়াস চালাচ্ছে: রাষ্ট্রপতি
  • পুলিশি বাধায় পূর্বনির্ধারিত সমাবেশ পণ্ড ১২ দলের
  • ২০২৮ সালে মধ্যে ম্যানুয়াল ইটভাটা থাকবে না: পরিবেশ মন্ত্রী
  • সীমান্তের ওপারে গোলাগুলির বিকট শব্দ, আতঙ্কে এপারের বাসিন্দারা
  • আজ শনিবার, ১১ ফাল্গুন, ১৪৩০ | ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪

    সুদর্শন নগরী পম্পেইর করুণ ইতিহাস

    সময়েরকণ্ঠস্বর প্রকাশ: ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১০:৫০ এএম
    সময়েরকণ্ঠস্বর প্রকাশ: ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১০:৫০ এএম

    সুদর্শন নগরী পম্পেইর করুণ ইতিহাস

    সময়েরকণ্ঠস্বর প্রকাশ: ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১০:৫০ এএম

    ইসমাইল হোসেন স্বপন, ইতালি: ইতালির ক্যাম্পানিয়া প্রদেশে নেপলসের (নাপোলি) আগ্নেয়গিরি ভিসুভিয়াস পর্বতের পাদদেশে ?পম্পেই? নামক ছোট্ট এক নগরী অবস্থিত। বর্তমানে উপকূল থেকে বেশ দূরে সরে গেলেও প্রাচীন এই নগরী এক সময় ছিল একেবারে উপকূলের ধার ঘেঁষে।

    ইতালীর তৎকালীন রাজা ওসকান কর্তৃক হাজার বছরের পুরনো এই শহরটির গোড়াপত্তন হয়েছিল খৃস্টপূর্ব ৬-৭ শতাব্দীর দিকে। পরে খৃস্টপূর্ব ৮০ এর দিকে ইউরোপের বিভিন্ন যুদ্ধের মাধ্যমে শহরটি রোমান সাম্রাজ্যের দ্বারা অধিকৃত হয়। সেসময় সেখানে গড়ে উঠে রোমান সাম্রাজ্যের অন্যতম বাণিজ্য বন্দর।

    রোমান সাম্রাজ্যের দ্বারা অধিকৃত এই নগরীটির ধ্বংস কাহিনী ছিল নির্মম। যা শুনলে আজও আঁতকে ওঠে বিশ্ববাসীর হৃদয়! প্রায় দুই হাজার বছর আগে আগ্নেয়গিরির এক অগ্নুৎপাতে নিমিষেই ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল প্রাচীন রোমান এই শহর। আগ্নেয়গিরির অগ্নুৎপাতে এক মুহূর্তেই পুড়ে ছাই হয়ে যায় পম্পেই শহর। সেখানকার প্রতিটি মানুষ, পশুপাখিসহ সকল জীবন্ত প্রাণের স্পন্দন চোখের পলকে ভষ্মীভূত হয়ে যায়। ধর্মীয় বিশ্বাস থেকে অনেকেই মনে করেন, নগরীর মানুষদের নানা পাপাচারের কারণেই এমন করুণ মৃত্যু হয়েছে তাদের।

    গত অক্টোবরের কোনো এক সকালে গিয়েছিলাম ইতালির নেপলসে। নেপলস থেকে খানিক পরপরই ট্রেন ছাড়ে। ট্রেন ছাড়ার ঘণ্টাখানেকের মধ্যে পম্পেই পৌঁছানো যায়। স্টেশন থেকেই পম্পেইর দিকে যাওয়ার দিক-নির্দেশনা চোখে পড়ে। মিনিট দুয়েক হাঁটলেই তার একাধিক প্রধান ফটকের একটি দেখা যায়। ফটক দিয়ে শতশত পর্যটকের সাথে প্রাচীরের ভেতরে ঢুকতেই যেন দুই হাজার বছর পিছিয়ে গেলাম। সারি সারি স্তম্ভ, পলেস্তারা খসে পড়া দেয়াল, লম্বা পাথরের রাস্তা চলে গেছে শহরের আরেক মাথা পর্যন্ত, দেব-দেবীর মন্দির।

    প্রথমেই ফোরাম নামে ফাঁকা জায়গাটি দেখা হলো। এখানেই নগরের সব বড় বড় অনুষ্ঠান হতো। ফোরামের চারদিকে বিভিন্ন ধরনের ভবন। অনেকগুলো স্মৃতিস্তম্ভও দেখা গেল ফোরাম স্কয়ারে। শহরের দেবরাজ জুপিটারের মন্দিরের পরে অ্যাপোলোর মন্দিরে যাওয়া হলো। অনেকটা একই ধাঁচের সবখানে। সারি সারি স্তম্ভ, ধসে পড়া ছাদ, ফাঁকা সবুজ জমি।

    এরমধ্যে হাউস অব দ্য ফন নামের বিখ্যাত বাড়িটির মাঝে ঢুকতেই উদ্যানের সাথে লাগানো ছোট একটি ঝরনার সামনে ফনের ভাস্কর্য দেখা গেল। যদিও এককালে কোন ধনি ব্যক্তির বিশাল বাড়িটির মূল আকর্ষণ একটি অসাধারণ মোজাইকের কাজ। যেখানে সম্রাট আলেকজান্ডারের সাথে ইরানের সম্রাট দারিউসের যুদ্ধ দেখানো হয়েছে।

    হাউস অব দ্য ট্র্যাজিক পয়েট বাড়ির প্রবেশ পথে যেমন মোজাইকে খোদাই করা ভীষণ দর্শন কুকুর চোখে পড়ল, তেমন ভেতরে ছিল গ্রিক পুরাণের নানা চিত্র। কিন্তু নামটি কেন হাউস অব দ্য ট্র্যাজিক পয়েট, তার অবশ্য সঠিক ব্যাখ্যা মেলে না।

    চমৎকার রাস্তাগুলো বৃষ্টির জল নেমে যাওয়ার জন্য সামান্য ঢালু করে তৈরি, সাথে ফুটপাতগুলোও। তবে নগরীতে টো টো করে ঘুরে মনে হলো- সবচেয়ে বেশি দেখলাম রান্নাঘর। বেশ চমৎকার মোজাইকের কাজ করা, রান্নার পাত্র রাখার জন্য গোল গোল ছিদ্র, এমন অনেকবারই চোখে পড়ল। আসলে সরগরম এলাকায় এমনই হওয়ার কথা।

    কিছু দোকানের সামনে তাদের ভাষায় লেখা আছে যে, সেখানে কোথায় কী মিলত। চিহ্ন দিয়ে বোঝানো আছে যে, সেটা কুমারের দোকান, নাকি কামারের, নাকি শুঁড়িখানা। দুঃখজনকভাবে পম্পেই নগরীর সবচেয়ে চমৎকারভাবে সংরক্ষিত চিত্রকর্মগুলো নেপলস পুরাতত্ত্ব জাদুঘরে আছে, তেমনভাবে এখানে অধিবাসী মানুষ এবং অন্যান্য প্রাণির মৃতদেহগুলোর অধিকাংশই একই জাদুঘরে স্থান পেয়েছে।

    পম্পেই ইট-পাথরের মৃত নগরী হলেও সেখানে কিছু সবুজের ছোঁয়া আছে সবখানেই। বিশেষ করে প্রাচীন আবহ ফিরিয়ে আনা হয়েছে উদ্যানগুলোতে সেই সময়ের গাছ রোপণ করেই। এছাড়া বড় ঘরগুলোর ভেতরের এক চিলতে বাগান তো আছেই।

    পম্পেই নগরীর জনসংখ্যা দশ হাজার হলেও ধারণা করা হয়, ভিসুভিয়াসের অগ্ন্যুতপাতের সময় এখানে হাজার বিশেক লোক জমায়েত হয়েছিল। কারণ রোমানদের কাছে পম্পেই অবকাশকেন্দ্র হিসেবে যথেষ্ট জনপ্রিয়তা লাভ করেছিল। গড়ে উঠেছিল রোমান অ্যারেনা। গ্ল্যাডিয়েটরদের লড়াই থেকে শুরু করে রাষ্ট্রীয় ভাষণ সবই চলত এখানে।

    ট্যাগ :

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…