এইমাত্র
  • ৯৮৯ কোটি রুপি ব্যয়ে দীর্ঘতম ক্যাবল সেতুর উদ্ধোধন নরেন্দ্র মোদির
  • বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি সংরক্ষিত আসনে ৫০ নারী
  • বাংলাদেশ ও ভারতের বিচার বিভাগ প্রায় একই: ভারতের প্রধান বিচারপতি
  • রমজান জুড়ে মাঠে থাকবে ভোক্তা অধিকার: মহাপরিচালক
  • দেশে আজ মতপ্রকাশের স্বাধীনতা ভূলুণ্ঠিত, বিবৃতিতে ফখরুল
  • মিথ্যা তথ্য ও গুজব ঠেকাতে নতুন আইন আসছে: আইনমন্ত্রী
  • জনগণকে ক্রীতদাস বানানোর চক্রান্ত চলছে: রিজভী
  • রমজান উপলক্ষ্যে ১০ হাজার পণ্যের দাম কমেছে আরব আমিরাতে
  • গাজায় হামাসের বেশিরভাগ টানেল অক্ষত
  • গ্যাসের ঘাটতি প্রায় ১ হাজার মিলিয়ন ঘনফুট: প্রতিমন্ত্রী
  • আজ রবিবার, ১২ ফাল্গুন, ১৪৩০ | ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪
    জাতীয়

    এশিয়ার আয়রন লেডি আখ্যা পেলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

    সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক প্রকাশ: ২৫ মে ২০২৩, ০৮:৫৭ পিএম
    সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক প্রকাশ: ২৫ মে ২০২৩, ০৮:৫৭ পিএম

    এশিয়ার আয়রন লেডি আখ্যা পেলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

    সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক প্রকাশ: ২৫ মে ২০২৩, ০৮:৫৭ পিএম

    প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এশিয়ার আয়রন লেডি হিসেবে আখ্যায়িত করেছে ব্রিটেনের বিখ্যাত সাময়িকী দ্যা ইকনোমিস্ট পত্রিকা।

    লন্ডন থেকে প্রকাশিত পত্রিকাতে বলা হয়, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘ মেয়াদী নারী সরকার প্রধান। তার নেতৃত্বে দারিদ্র বিমোচনের পাশাপাশি বেশিরভাগ সময় ৭ ভাগ জিডিপি প্রবৃদ্ধি ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছে দেশটি।

    প্রতিবেদনে বলা হয়, ৭৫ বছর বয়সী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগকে চারবার নির্বাচনে বিজয়ী করেছেন, যা ইন্দিরা গান্ধী ও মার্গারেট থ্যাচারের চেয়েও বেশি বলেও তুলে ধরে দ্যা ইকনোমিস্ট।

    আগামী বছরের শুরুর দিকে বাংলাদেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। ওই নির্বাচনেও তিনি জয়ী হবেন বলে আশা করছেন। সম্প্রতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নর্দার্ন ভার্জিনিয়ার হোটেল স্যুটে তার সাক্ষাৎকার নিয়েছে দ্য ইকোনমিস্ট।

    সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশ নিয়ে তার স্বপ্ন ও উচ্চাশার বিষয়ে জানতে চেয়েছিল ব্রিটিশ এই সাময়িকী। বুধবার (২৪ মে) ‘এশিয়ার লৌহ মানবী শেখ হাসিনা’ শিরোনামে সেই সাক্ষাৎকার প্রকাশ করেছে দ্য ইকোনমিস্ট।

    সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘আমি এই দেশকে একটি ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত দেশ করতে চাই।’ তারপর ভয়াবহ ইতিহাসের কথা উল্লেখ করে তিনি প্রশ্ন করেন, ‘আপনি কী ভাবতে পারেন, তারা আমার বাবাকে হত্যা করেছে?’

    ইকোনমিস্ট বলছে, তার বাবা ও বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের কাছ থেকে দেশটির রক্তক্ষয়ী স্বাধীনতা লাভের চার বছর পর ১৯৭৫ সালে সামরিক অভ্যুত্থানে নিহত হন। তার ১৭ জন ঘনিষ্ঠ আত্মীয় খুন হয়েছিলেন। সেই সময় শেখ হাসিনা ইউরোপে থাকায় বেঁচে যান।

    ‘তারা আমার ভাইকে, আমার মাকে, আরেক ভাইকে হত্যা করেছে— মাত্র দশ বছর বয়সী! আমার দুই বোন জামাই, আমার একমাত্র চাচা একজন প্রতিবন্ধী তাকেও হত্যা করেছে,’ বলেন প্রধানমন্ত্রী। এসব কথা বলার সময় তার চোখ অশ্রুতে ভিজে যায়।

    তার উপদেষ্টারা এই সাক্ষাৎকারগ্রহণকারী ইকোনমিস্টের প্রতিবেদককে সেই দীর্ঘকাল আগের ট্র্যাজেডি সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রীকে জিজ্ঞাসা করতে বলেছিলেন। প্রতিবেদক সেটি না করলেও শেখ হাসিনা তা তুলে ধরেন।

    কোনও রাজনীতিকই সমালোচনা পছন্দ করেন না। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার বাংলাদেশের অন্যান্য সব সরকারের চেয়ে ব্যতিক্রম বলে ইঙ্গিত দেন। দুর্নীতির বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি তার বাবার স্থলাভিষিক্ত হওয়া সামরিক সরকারকে দায়ী করেন। একই সঙ্গে তার সরকারের সদস্যদের দুর্নীতিতে জড়িত থাকার অভিযোগে একটি প্রকল্পের অর্থায়ন থেকে সরে যাওয়ার ঘটনায় বিশ্বব্যাংককে অভিযুক্ত করেন। বিশ্বব্যাংক দুর্নীতির যে অভিযোগ তুলেছিল, সেটির কোনও অস্তিত্ব নেই বলেও দাবি করেন তিনি।

    দুর্নীতির বিষয়ে শেখ হাসিনা বলেন, হয়তো নিচের স্তরে আছে। তবে আজকাল তেমন নাই। তারা দুর্নীতির সাহস করলে আমি ব্যবস্থা নেব!

    দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় আফগানিস্তানের পরই আছে বাংলাদেশ। তালেবানের উত্থানে এই অঞ্চলে এখন সবচেয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ আফগানিস্তান। শেখ হাসিনা ২০০৮ সালে পুনর্নির্বাচিত হওয়ার আগে আওয়ামী লীগ এবং খালেদা জিয়ার নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) মধ্যে বারবার ক্ষমতার পালাবদল হয়েছে। বর্তমানে খালেদা জিয়া গৃহবন্দী রয়েছেন। তার দলের কর্মী-সমর্থকরাও ভীত।

    আগামী নির্বাচন বিএনপিকে ফেরার পথ দেখাবে কি না, সেটি পরিষ্কার নয়। যদিও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একটি সুষ্ঠু ভোটের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বলে দাবি করেছেন। তিনি বলেছেন, নির্বাচনে কেবল ‘প্রকৃত রাজনৈতিক দলকেই’ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার অনুমতি দেওয়া উচিত এবং তার বিরোধীরা নির্বাচনী মানদণ্ড পূরণ করতে পারছে না।

    তিনি অর্ধশতাব্দী আগে সেনাশাসনের অধীনে গঠিত বিএনপিকে ‘একজন সামরিক শাসক কর্তৃক অবৈধভাবে গঠিত’ রাজনৈতিক দল বলে অভিযোগ করেছেন। প্রধানমন্ত্রী অভিযোগ করে বলেন, পাকিস্তানের সাবেক মিত্র দেশের সবচেয়ে বড় একটি ইসলামি দল; যাদের প্রায় সবাই যুদ্ধাপরাধী। আমাদের বক্তব্য হল, বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ ছাড়া এমন কোনও দল নেই, যারা সত্যিই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারে।

    ইকোনমিস্ট লিখেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কঠোর কব্জায় থাকার কারণে বাংলাদেশ সম্ভবত কিছুক্ষেত্রে উপকৃতও হচ্ছে। তবে তা বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধির হার স্পষ্টতই খুব বেশি বাড়ায়নি। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতায় আসার আগেই এই প্রবৃদ্ধির হার বৃদ্ধি পেয়েছিল। পূর্বের বিদ্যমান বিভিন্ন অবকাঠামো ও অন্যান্য উপাদানের কল্যাণে তা হয়েছে। এর মধ্যে একটি হলো পণ্য: যেমন দেশের পোশাক শিল্প এবং অভিজাত এনজিওগুলোর সরবরাহ করা সেবা। তারপরও তিনি দেশের অবকাঠামো বিনিয়োগসহ বিভিন্ন নীতিমালা তৈরি করেছেন; যা প্রবৃদ্ধির গতি বজায় রাখতে সহায়তা করেছে।

    ট্যাগ :

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…