এইমাত্র
  • ঈদুল আজহাতেই রিজার্ভ বাড়ল ৩১ কোটি ৮৩ লাখ ডলার
  • অস্ট্রেলিয়াকে ১৪১ রানের টার্গেট দিল টাইগাররা
  • হজের প্রথম ফিরতি ফ্লাইটে দেশে ফিরলেন ৪১৭ হাজি
  • টসে হেরে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ
  • দুপুরে ভারত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
  • ঈদে ৭ খামার থেকে ৭০ লাখ টাকার গরু কেনেন সেই ইফাত
  • এরপর গুলি করলে আমরাও পাল্টা গুলি করব: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
  • সুনামগঞ্জ পুলিশের উদ্যোগে বন্যার্তদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ
  • শ্রমিক-মালিক স্বার্থ রক্ষায় শ্রম আইন হালনাগাদ হচ্ছে: শ্রম প্রতিমন্ত্রী
  • সৌদিতে মৃত হজযাত্রীর সংখ্যা ৯০০ ছাড়িয়েছে, নিখোঁজ অনেকে
  • আজ শুক্রবার, ৭ আষাঢ়, ১৪৩১ | ২১ জুন, ২০২৪
    দেশজুড়ে

    ১৬ হাজার ১৯৭ ভোটে হারলেন নৌকার প্রার্থী আজমত উল্লা খান

    সময়ের কণ্ঠস্বর টিম প্রকাশ: ২৬ মে ২০২৩, ০২:৩৭ এএম
    সময়ের কণ্ঠস্বর টিম প্রকাশ: ২৬ মে ২০২৩, ০২:৩৭ এএম

    ১৬ হাজার ১৯৭ ভোটে হারলেন নৌকার প্রার্থী আজমত উল্লা খান

    সময়ের কণ্ঠস্বর টিম প্রকাশ: ২৬ মে ২০২৩, ০২:৩৭ এএম

    দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে আলোচনার কেন্দ্রে গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন। এই নির্বাচনে মুখ্য চরিত্রে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত, মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বরখাস্ত হওয়া সাবেক মেয়র জাহাঙ্গীর আলম। দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীর বিপক্ষে দ্বিতীয় বারের মতো বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছিলেন তিনি। কিন্তু নানান জটিলতায় আটকে যায় তার প্রার্থীতা।

    এর আগে ২০১৩ সালেও তিনি সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিপক্ষে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছিলেন। তখনো দলীয় মনোনীত প্রার্থী ছিলেন আজমত উল্লা খান। এবার জাহাঙ্গীর নিজে আটকে গেলেও তার জায়গায় মা স্বতন্ত্র প্রার্থী জায়েদা খাতুনকে দিয়ে আজমত উল্লার বিপরীতে আড়াল থেকে লড়েছেন তিনি। আর সেই লড়াইয়ে অবশেষে জয় পেলেন। এর মধ্য দিয়ে জাহাঙ্গীরের পর তার মায়ের কাছেও হারলেন আজমত।

    বৃহস্পতিবার (২৫ মে) রাত দেড়টার দিকে গাজীপুর জেলা পরিষদের ভবনের বঙ্গতাজ মিলনায়তন থেকে রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. ফরিদুল ইসলাম আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা দেন।

    এতে ১৬ হাজার ১৯৭ ভোটে পরাজিত হয়েছেন নৌকা প্রতীকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আজমত উল্লা খান। তিনি পেয়েছেন ২২২৭৩৭ ভোট। অন্যদিকে টেবিল ঘড়ি প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী জায়েদা খাতুন ২৩৮৯৩৪ ভোট পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন।

    অন্য কোন প্রার্থী এই দুইজনের ভোটের কাছাকাছি ছিলেন না। মাছ প্রতীকের আতিকুল ইসলাম পেয়েছেন ১৬ হাজার ৯৭৪ ভোট, লাঙ্গল মার্কার এম এম নিয়াজ উদ্দিন ১৬ হাজার ৩৬২ ভোট, হাতপাখার গাজী আতাউর রহমান ৪৫ হাজার ৩৫২, গোলাপ ফুল প্রতীকের মো. রাজু আহমেদ পেয়েছেন ৭ হাজার ২০৬ ভোট, ঘোড়া প্রতীকের মো. হারুন-অর-রশিদ ২ হাজার ৪২৬ ও হাতি প্রতীক নিয়ে সরকার শাহনূর ইসলাম পেয়েছেন ২৩ হাজার ২৬৫ ভোট।

    এর আগে ফল ঘোষণার শুরু থেকে কেন্দ্রে অবস্থান করেছেন সাবেক মেয়র জাহাঙ্গীর আলম। তবে কেন্দ্রে আসেননি নৌকার প্রার্থী আজমত উল্লা খান।

    বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় ৫৯টি ওয়ার্ডের ৪৮০ কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। কোনও ধরনের সংঘর্ষ ছাড়াই সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে বিকাল ৪টায় শেষ হয় ভোট।

    ২০১৩ সালে গাজীপুর সিটি করপোরেশন প্রতিষ্ঠিত হয়। তখন সিটির প্রথম মেয়র হন এম. এ. মান্নান। ২০১৮ সালে দ্বিতীয় সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র হন জাহাঙ্গীর আলম। মেয়াদ শেষের আগেই তাকে বরখাস্ত করা হয়েছিল।

    নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, গাজীপুর সিটিতে মোট ভোটার ১১ লাখ ৭৯ হাজার ৪৭৬ জন। এর মধ্যে ৫ লাখ ৯২ হাজার ৭৬২ পুরুষ, ৫ লাখ ৮৬ হাজার ৬৯৬ নারী ও ১৮ জন হিজড়া। এই সিটিতে ৫৭টি সাধারণ ও ১৯টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড আছে। মোট ভোটকেন্দ্র ৪৮০টি, মোট ভোটকক্ষ ৩ হাজার ৪৯৭টি।

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    চলতি সপ্তাহে সর্বাধিক পঠিত

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…