এইমাত্র
  • হাসপাতালের প্রিজন সেলে আসামির হাতে আসামি খুন
  • মুক্তিপণ নিয়ে ফেরার পথে ৮ জলদস্যু গ্রেপ্তার
  • বাংলাদেশে পালিয়ে এলো মিয়ানমার বিজিপির আরও ৯ সদস্য
  • নতুন বছরকে স্বাগত জানিয়ে হলো মঙ্গল শোভাযাত্রা
  • কুষ্টিয়ার মিরপুরে আ.লীগ নেতার গুলিতে ২ জন গুলিবিদ্ধ, আটক ২
  • অবকাঠামো বিহীন টেকনাফ সমুদ্র সৈকতে পর্যটকের ঢল
  • উত্তেজনার মধ্যেই ইসরায়েলে রকেট হামলা হিজবুল্লাহর
  • রাজধানীতে অতিরিক্ত মদপানে ও লেভেলের শিক্ষার্থীর মৃত্যু
  • ফিলি’স্তিন রাষ্ট্রকে স্বীকৃতি দিতে ‘প্রস্তুত’ ইউরোপের যে ৩ দেশ
  • পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠানে জঙ্গি হামলার আশঙ্কা নেই : ডিএমপি কমিশনার
  • আজ রবিবার, ১ বৈশাখ, ১৪৩১ | ১৪ এপ্রিল, ২০২৪
    দেশজুড়ে

    জয়পুরহাটে হত্যা মামলায় ৯ জনের যাবজ্জীবন

    ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট প্রকাশ: ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০২:৩৫ পিএম
    ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট প্রকাশ: ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০২:৩৫ পিএম

    জয়পুরহাটে হত্যা মামলায় ৯ জনের যাবজ্জীবন

    ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট প্রকাশ: ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০২:৩৫ পিএম

    জয়পুরহাটে নুরুল হক নামে এক দিনমজুর হত্যা মামলায় ৯ জনকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা এবং অনাদায়ে আরও দুই বছর কারাদণ্ডের আদেশ দেন আদালত।

    বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে ১১টায় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ-১ আদালতের বিচারক মো. নুরুল ইসলাম এ রায় দেন।

    রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জয়পুরহাট জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) অ্যাডভোকেট নৃপেন্দ্রনাথ মন্ডল।

    কারাদন্ডপ্রাপ্তরা হলেন- জয়পুরহাট সদর উপজেলার সোটাহার ধারকী গ্রামের আ. রউফ, রুহুল আমিন, আলী হোসেন, খোকন হোসেন, বেলাল হোসেন, রোকন হোসেন, বাবু হোসেন, মিজানুর রহমান ও সিরাজুল ইসলাম।

    আদালত সূত্রে জানা যায়, ৯ জন আসামিকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড ও দুই জন আসামি সানোয়ার হোসেন ও কেতাব্বরকে খালাস দেন আদালত। যাবজ্জীবন সশ্রম সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের পুলিশি পাহারায় জয়পুরহাট জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

    মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০১৩ সালের ১ নভেম্বর জয়পুরহাট সদর উপজেলার হিচমি গ্রামের দিনমজুর নুরুল হক অন্য দিনমজুরদের নিয়ে হিচমি মাঠে ধান কাটতে যায়। এ সময় জমি নিয়ে বিরোধের জেরে আসামিরা দলবদ্ধভাবে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে নুরুল হককে আঘাত করে। এতে নুরুল হক গুরুতর আহত হলে প্রথমে তাকে জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতাল এবং পরে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানেই তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় নিহতের ছেলে বাদী হয়ে জয়পুরহাট সদর থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলায় দীর্ঘ শুনানি শেষে আদালত এ রায় দেন।

    রাষ্ট্রপক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট নৃপেন্দ্রনাথ মন্ডল (পিপি), অ্যাডভোকেট গোকুল চন্দ্র মন্ডল (এপিপি), অ্যাডভোকেট শামীমুল ইসলাম শামীম (এপিপি) এবং অ্যাডভোকেট শামসুল ইসলাম বুলবুল (এপিপি)।

    আসামি পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট ছালামত আলী, অ্যাডভোকেট হেনা কবির, অ্যাডভোকেট শাহনুর রহমান শাহিন এবং অ্যাডভোকেট সুলতান আলম মোল্লা।

    এআই

    ট্যাগ :

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…