এইমাত্র
  • পণ্য মজুতকারীদের গণধোলাই দেয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী
  • মাদারীপুরে এক্সপ্রেসওয়েতে বাস ও ট্রাকের সংঘর্ষে নিহত ৪
  • চিনির দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত থেকে সরে এলো সরকার
  • বসন্ত বিকেলে স্বস্তির বৃষ্টিতে ভিজল ঢাকা
  • বিদেশি ঋণের চাপ আছে, তবে বেশি না: অর্থমন্ত্রী
  • রিয়া মণিকে নিয়ে প্রশ্ন করায় ক্ষেপলেন হিরো আলম
  • রোজার আগেই চিনির দাম বাড়লো কেজিতে ২০ টাকা
  • ‘বিএনপির আটক কর্মীদের মুক্তির সঙ্গে নির্বাচনের সম্পর্ক নেই’
  • বঙ্গবন্ধুর হাত ধরেই মাতৃভাষা ও স্বাধীনতা পেয়েছি: শেখ হাসিনা
  • সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলতাফ চৌধুরীর জামিন, মুক্তিতে বাধা নেই
  • আজ শুক্রবার, ১০ ফাল্গুন, ১৪৩০ | ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪

    শাহজাদপুরে শিক্ষকের বহিস্কার দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল

    সময়েরকণ্ঠস্বর প্রকাশ: ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০৪:০০ পিএম
    সময়েরকণ্ঠস্বর প্রকাশ: ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০৪:০০ পিএম

    শাহজাদপুরে শিক্ষকের বহিস্কার দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল

    সময়েরকণ্ঠস্বর প্রকাশ: ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০৪:০০ পিএম

    রাজিব আহমেদ রাসেল, শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে কামরুল ইসলাম (চাঁদ) নামের এক সহকারি প্রধান শিক্ষকের চাকুরীর প্রলোভন দেখিয়ে অনৈতিক কাজের প্রতিবাদে ও তার বহিস্কার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে ছাত্রছাত্রীরা।

    সোমবার (০৬ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টায় পোরজনা এমএন উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে শত শত শিক্ষার্থীর অংশগ্রহনে বিক্ষোভ মিছিলটি শুরু হয়ে ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরের সামনে দিয়ে পোরজনা বাজার প্রদক্ষিণ শেষে আবারও স্কুল প্রাঙ্গনে এসে শেষ হয়। এসময় শিক্ষার্থীরা অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন রকমের শ্লোগান দেয় ও তার বহিস্কার দাবি করেন।

    জানা যায়, অভিযু্ক্ত সহকারি প্রধান শিক্ষক কামরুল ইসলাম চাঁদ নন্দলালপুর মধ্যপাড়া গ্রামের ইসমাইল হোসের ছেলে ও ২ সন্তানের জনক। সে পোরজনা এমএন উচ্চ বিদ্যালয়ের কম্পিউটার অপারেটর পদে নিয়োগ দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে একই গ্রামের ইউনুস আলীর মেয়ে স্বামী পরিত্যাক্তা ১ সন্তানের জননী সুলতানা খাতুনের সাথে ২ বছর পূর্বে পরকীয়া প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পরে।

    গত ৩১ জানুয়ারি সন্ধ্যায় সুলতানা খাতুন কামরুল ইসলাম চাঁদের বাড়িতে বিয়ের দাবিতে অবস্থান শুরু করেন। ঔদিন রাতেই অভিযুক্ত শিক্ষক সেই নারীকে নিয়ে পালিয়ে যায়।

    বিক্ষোভ মিছিল শেষে পোরজনা এমএন উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করে বলেন, সহকারি প্রধান শিক্ষকের এরকম অনৈতিক কাজের কারণে আমরা এই স্কুলের ছাত্রছাত্রী হিসেবে পরিচয় দিতে সংকোচ বোধ করছি।

    তারা আরও বলেন, এরকম শিক্ষককে আমরা বিদ্যালয়ে প্রবেশ করতে দেবোনা ও তার কাছ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করবো না। তাকে অবিলম্বে এই বিদ্যালয় থেকে বহিস্কার ও চাকুরিচ্যুত করতে হবে।

    এই বিষয়ে পোরজান এমএন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ওয়ারেছ আলী বলেন, সহকারি প্রধান শিক্ষকের এরকম কাজে আমরাও বিব্রত রয়েছি। তিনি ২৯ জানুয়ারি থেকে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত রয়েছেন। আমরা ম্যানেজিং কমিটির সাথে আলোচনা করে ইতিমধ্যেই কিছু সিদ্ধান্তে পৌছেছি।

    এই ঘটনায় পোরজনা এমএন উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আমজাদ হোসেন বলেন, সে যে ঘটনা ঘটিয়েছে সেটা অত্যান্ত দুঃখজনক এই ক্ষেত্রে ছাত্রদের দাবি উঠতেই পারে। আমরা আইন অনুযায়ী সেই প্রক্রিয়ায় রয়েছি। প্রাথমিকভাবে তাকে শোকজ নোটিশ পাঠানো হবে।

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…