এইমাত্র
  • আজ দে‌শের স‌র্বোচ্চ তাপমাত্রা চুয়াডাঙ্গায়
  • বাংলাদেশি পর্যটকদের ৩ দিন ভারত ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা
  • চার বিভাগে হিট অ্যালার্ট জারি আবহাওয়া অফিসের
  • খারকিভে চলছে ‘কঠিন লড়াই’: জেলেনস্কি
  • সবুজবাগে নির্মাণাধীন ভবনের মাচা ভেঙে নিহত ৩ শ্রমিক
  • আবারো চুয়াডাঙ্গায় তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি ছুঁই ছুঁই
  • চুয়াডাঙ্গায় সড়ক দুর্ঘটনায় বাইসাইকেল আরোহী নিহত
  • সিরাজগঞ্জে কভার্ডভ্যানে মিলল ২১৬ কেজি গাঁজা, গ্রেপ্তার ২
  • টাঙ্গাইলের ১৬ সরকারি অফিসে ওড়ে না জাতীয় পতাকা
  • ১০ হাজারের বেশি বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠাবে যুক্তরাজ্য
  • আজ শনিবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ | ১৮ মে, ২০২৪
    ধর্ম ও জীবন

    ওমরাহ কী এবং ইসলামে ওমরাহর গুরুত্ব কত?

    সময়ের কণ্ঠস্বর প্রকাশ: ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০৪:৩৫ পিএম
    সময়ের কণ্ঠস্বর প্রকাশ: ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০৪:৩৫ পিএম

    ওমরাহ কী এবং ইসলামে ওমরাহর গুরুত্ব কত?

    সময়ের কণ্ঠস্বর প্রকাশ: ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০৪:৩৫ পিএম

    ওমরাহ শব্দের আভিধানিক অর্থ হলো ভ্রমণ করা। জীবনে একবার ওমরাহ করা সুন্নতে মুয়াক্কাদা। এটা যখনই করা হোক, তার জন্য প্রতিদান ও বরকত রয়েছে।

    শরিয়তের বিধান মতে, ওমরাহর নিয়ম হলো-আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশে সুন্নত বা নফল ওমরাহ পালনের নিয়ত করে হজের মতো ?মিকাত? তথা ইহরাম বাঁধার নির্ধারিত জায়গা থেকে বা তার আগেই ইহরামের নিয়ত করতে হয়।

    অতঃপর বাইতুল্লাহ শরিফে এসে সাত চক্কর তওয়াফ করে সাফা-মারওয়া পাহাড়দ্বয়ের সাঈ করতে হয়। সর্বশেষ হলক (মাথা মুণ্ডানো) কিংবা কসর (চুল ছোট করা)-এর মাধ্যমে ইহরাম খুলতে হয়।

    কোরআন ও হাদিসে ওমরাহর অনেক ফজিলত বর্ণিত হয়েছে। আল্লাহতায়ালা বলেন, ?তোমরা আল্লাহর উদ্দেশে হজ ও ওমরাহ পরিপূর্ণভাবে পালন করো।? (সুরা বাকারা: ১৯৬)।

    আবু হুরায়রা (রা.) সূত্রে বর্ণিত; তিনি বলেন, রাসুল (সা.) বলেছেন, ?এক ওমরাহ থেকে পরবর্তী ওমরাহ পর্যন্ত মাঝখানের গোনাহগুলোর জন্য কাফফারা স্বরূপ।? (বোখারি: ১৬৮৩, মুসলিম: ৩৩৫৫)।

    ওমরাহ দারিদ্র্য বিমোচন করে। আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) সূত্রে বর্ণিত; তিনি বলেন, রাসুল (সা.) বলেছেন, ?তোমরা হজ ও ওমরাহ আদায় করো। কেননা, হজ ও ওমরাহ দারিদ্র্য বিমোচন ও গোনাহ দূর করে দেয় ঠিক সেভাবে, যেভাবে হাঁপরের আগুন লোহা, সোনা ও রুপা থেকে ময়লা দূর করে দেয়।? (তিরমিজি: ৮১০)।

    ওমরা ও হজের পার্থক্য
    হজ ও ওমরার মধ্যে অনেক ধরনের পার্থক্য বিদ্যমান। হজ ফরজ থাকা অবস্থায় তা আদায়ের সুযোগ থাকা সত্ত্বেও হজ সম্পন্ন না করে বারবার ওমরা করা অযৌক্তিক। কারণ, শত-সহস্র ওমরা হজের সমকক্ষ নয়। অনুরূপভাবে ওমরা আদায় করলে হজ ফরজ হয়ে যায়, এমনটিও সঠিক নয়। হজ যেমন জীবনে একবার করা ফরজ, তেমনি ওমরা জীবনে অন্তত একবার করা সুন্নত।

    হজ ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের একটি। হজ সম্পর্কে হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ?যে ব্যক্তি হজের জন্য আল্লাহতায়ালার ইচ্ছার প্রতিদান করে এবং তার স্ত্রীর সঙ্গে যৌনমিলন করে না এবং মন্দ ও পাপ করে না, তখন তিনি আবার ফিরে আসবেন, যেন তিনি নতুন করে জন্মগ্রহণ করেন। -সহিহ বোখারি: ৫৬৯

    প্রধান পার্থক্যসমূহ
    ১. উভয়ই আল্লাহতায়ালার সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে করা কিন্তু পার্থক্য রয়েছে গুরুত্ব এবং পদ্ধতির মধ্যে।

    ২. প্রত্যেক মুসলমানের জন্য তাদের জীবনকালে এটি পালন করা বাধ্যতামূলক যদি তারা শারীরিকভাবে উপযুক্ত এবং আর্থিকভাবে এটি করতে সক্ষম হয়।

    ৩. হজ এক নির্দিষ্ট সময়ে করতে হয় কিন্তু ওমরা বছরের যেকোনো সময়ই করা যায়।

    ৪. ওমরার মধ্যে আরাফার ময়দান ও মুজদালিফায় অবস্থান, দুই ওয়াক্ত নামাজ একসঙ্গে আদায় করা ও খুতবার কোনো বিধান নেই। তাওয়াফে কুদূম এবং তাওয়াফে বিদাও নেই। কিন্তু ওই সব কাজ হজের মধ্যে রয়েছে।

    ৫. ওমরার মধ্যে তাওয়াফ আরম্ভ করার সময় তালবিয়া পড়া মওকুফ করা হয়। আর হজের মধ্যে জামরাতুল আকাবাতে কংকর নিক্ষেপ করার সময় মওকুফ করা হয়।

    ৬. ওমরা নষ্ট হলে বা জানাবত (ওই নাপাকী যা দ্বারা গোসল ফরজ হয়) অবস্থায় তওয়াফ করলে (দম হিসেবে) একটা ছাগল বা মেষ জবেহ করা যথেষ্ট, কিন্তু হজে তা যথেষ্ট নয় বরং পরবর্তী বছর পুনরায় হজ সম্পন্ন করতে হয়।

    ট্যাগ :

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…