এইমাত্র
  • যাত্রাবাড়ীতে গুলিবিদ্ধ হয়ে সাংবাদিক হাসান মেহেদি নিহত
  • ইন্টারনেট বন্ধ করায় গ্রামীণফোনের হেডঅফিস ঘেরাও
  • অস্ত্র জমা দিয়েছি কিন্তু ট্রেনিং জমা দিইনি: মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী
  • দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে বিটিভির আগুন, যেতে পারছে না ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি
  • টাঙ্গাইলে পুলিশের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের দফায় দফায় সংঘর্ষ
  • কিশোরগঞ্জে আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা, আহত অর্ধশতাধিক
  • পঞ্চগড়ে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল-সড়ক অবরোধ
  • কুমিল্লায় পুলিশের সঙ্গে আন্দোলনকারীদের সংঘর্ষ, আহত শতাধিক
  • জামালপুরে পুলিশ-শিক্ষার্থী সংঘর্ষ, আহত ১২, আটক ৪
  • কটিয়াদীতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভে হামলায় আহত অর্ধশত
  • আজ মঙ্গলবার, ৮ শ্রাবণ, ১৪৩১ | ২৩ জুলাই, ২০২৪
    দেশজুড়ে

    সাতক্ষীরার সুন্দরবন টেক্সটাইলের মাটি রাতের আঁধারে বিক্রি!

    জাহিদ হোসাইন, সাতক্ষীরা প্রতিনিধি প্রকাশ: ৮ জুন ২০২৩, ০৬:৩১ এএম
    জাহিদ হোসাইন, সাতক্ষীরা প্রতিনিধি প্রকাশ: ৮ জুন ২০২৩, ০৬:৩১ এএম

    সাতক্ষীরার সুন্দরবন টেক্সটাইলের মাটি রাতের আঁধারে বিক্রি!

    জাহিদ হোসাইন, সাতক্ষীরা প্রতিনিধি প্রকাশ: ৮ জুন ২০২৩, ০৬:৩১ এএম

    পুকুর খননের নামে সাতক্ষীরার সুন্দরবন টেক্সটাইল মিলের অভ্যন্তরের মাটি রাতের আঁধারে চুরি করে বিক্রি করছেন ওই প্রতিষ্ঠানের ইনচার্জ শফিউল বাশার।

    গত মঙ্গলবার(৬ জুন) রাত সাড়ে ১০ টার দিকে সুন্দরবন টেক্সটাইল মিলে যেয়ে দেখা যায়, পুকুর খননের নামে ভেকু মেশিন দিয়ে মাটি কেটে মিনি ট্রাকে ভরা হচ্ছে। মাটিভর্তি ট্রাক মিলের গেট দিয়ে বের হয়ে প্রধান সড়কে উঠে বিনেরপোতা এলাকার দিকে নিয়ে যাচ্ছে। এতে ৮/১০টি ট্রাক মাটি বহনের কাজে ব্যবহৃত হচ্ছে। ট্রাকের ড্রাইভারদের কাছে জানতে চাইলে, ওই মাটি বাবু নামের একজন ইনচার্জের কাছ থেকে কিনে নিয়েছে বলে তারা জানান।

    নাম প্রকাশ না করার শর্তে সুন্দরবন টেক্সটাইল মিলস সংশ্লিষ্ঠ একাধিক ব্যক্তি বলেন, শফিউল বাসার ১০ বছরেরও অধিক সময় সুন্দরবন টেক্সটাইল মিলস এ কর্মরত আছেন। যোগদানের পর থেকে প্রতিষ্ঠানের সম্পদগুলো তিনি নিজের পৈত্রিক সম্পত্তি হিসেবে ব্যবহার করছেন। কোন রকম টেন্ডার বা অনুমতি ছাড়াই তিনি ইচ্ছামতো গাছ কাটেন, মাছ ধরে বিক্রি করেন। সম্প্রতি পুকুর খননের নামে তিনি পুকুরের মাটি ট্রাকপ্রতি ২ হাজার টাকা করে বিক্রি করে দিয়েছেন। যারা মাটি কিনেছেন তারা মিনি ট্রাকে ভরে রাতের আঁধারে অন্যত্র নিয়ে যাচ্ছেন। একজন সরকারী কর্মকর্তা কোন রকম টেন্ডার ছাড়াই কিভাবে সরকারী প্রতিষ্ঠানের মাটি বিক্রি করেন? আমরা এ ব্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

    এ ব্যাপারে জানতে চাইলে অভিযুক্ত ইনচার্জ শফিউল বাশার বলেন, ‘গাছের গোড়ায় মাটি দেওয়ার জন্য টাকার দরকার তাই কিছু মাটি বিক্রি করেছি। সরকারী কোন বরাদ্দ না থাকায় বাধ্য হয়ে ওই কাজ করতে হয়েছে। তবে সকল বিষয় বিটিএমসি জানে। আপনার বিস্তারিত কিছু জানতে হলে আপনি বিটিএমসিতে যোগাযোগ করেন।’

    এ বিষয়ে বিটিএমসি’র মুখ্য পরিচালন কর্মকর্তা মো. নূরুল আলমের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে খোঁজ নিয়ে বিস্তারিত পরে জানাতে পারবো।’

    পিএম

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…