এইমাত্র
  • ভারী বৃষ্টিতে ডুবল সিলেট, ঈদ আনন্দ ম্লান
  • গণভবনে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করলেন প্রধানমন্ত্রী
  • নেপালকে হারিয়ে সুপার এইটে বাংলাদেশ
  • জাতীয় ঈদগাহে প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত, নামাজ পড়লেন রাষ্ট্রপতি
  • ৪০ হাজারের বেশি মুসল্লি নিয়ে আল-আকসায় ঈদের জামাত
  • ২২০০ পশুর গোশতো বিতরণ হবে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে
  • ঈদের দিন রাজধানীসহ দেশের যেসব অঞ্চলে বৃষ্টির সম্ভাবনা
  • বায়তুল মুকাররমে ঈদুল আজহার ৫ জামাতের সময়সূচি
  • দেশবাসীর উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী ভিডিও বার্তায় যা বললেন
  • সীমান্ত সু-রক্ষায় কঠোর অবস্থানে থাকার নির্দেশ
  • আজ সোমবার, ৩ আষাঢ়, ১৪৩১ | ১৭ জুন, ২০২৪
    দেশজুড়ে

    ২১ বার শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছিল: শামীম ওসমান

    সুমন মিয়া, নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি প্রকাশ: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৮:৫২ পিএম
    সুমন মিয়া, নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি প্রকাশ: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৮:৫২ পিএম

    ২১ বার শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছিল: শামীম ওসমান

    সুমন মিয়া, নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি প্রকাশ: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৮:৫২ পিএম

    নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য এ কে এম শামীম ওসমান বলেছেন, ২১ বার শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছিল, আমাদের স্বপ্নটাকে বাঁচিয়ে রাখুন, তিনিই আমাদের স্বপ্ন। অক্টোবর নাগাদ ওরা মানচিত্রে থাবা দেবে; ক্ষমতায় আসার জন্য নয়, বাংলাদেশকে ধ্বংস করার জন্য ওরা এটা করবে।

    বিকেলে নারায়ণগঞ্জ শহরের ২ নং রেলগেট এলাকায় শামীম ওসমানের আহ্বানে আয়োজিত সমাবেশ জনসমুদ্রে পরিণত হয়।

    এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

    শামীম ওসমান বলেন, যারা বাংলাদেশকে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করতে চায়, তাদের বলতে চাই—আমরা কারও পায়ে ভর দিয়ে দাঁড়াইনি। বাংলাদেশ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নিজের পায়ে ভর দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে।

    তিনি বলেন, ১৯৮১ সালে পার্টি অফিসে ঢুকে মনির ভাইকে হত্যা করা হয়েছিল। আমরা বিচার পাইনি। নিজের এই হাত দিয়ে নারায়ণগঞ্জ শহরে পঞ্চাশটা লাশ দাফন করেছি। অনেককেই কবরস্থানে নিয়ে যেতে পারিনি। শেখ হাসিনা যখন বাংলাদেশকে উন্নয়নের শিখরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছেন, সেই সময় দেশি-বিদেশিরা শেখ হাসিনাকে হত্যার পরিকল্পনা করছে। ওই বেইমান শকুনরা ষড়যন্ত্র করছে।

    শামীম ওসমান আরও বলেন, বোমা হামলার পর আমি বুঝিনি যে, আমি বেঁচে আছি। আমাদের কী অপরাধ ছিল? খালেদা জিয়া বলেছিলেন, পার্লামেন্টে আমাকে দেখে নেবেন। আমরা প্রতিবাদ করেছিলাম। ত্রিশ লাখ শহীদের রক্তে রঞ্জিত বাংলাদেশ, এই নারায়ণগঞ্জে আমাদের যারা ’৭৫ এর পর বড় হয়েছি, আমাদের জীবন প্যালেস্টাইনের যুবদকদের মতো হয়ে গিয়েছিল।

    আমরা তোলারাম কলেজের ছাত্র ছিলাম। উনিশ জন ছাত্র দাঁড়িয়ে স্লোগান দিয়েছি। তোলারাম কলেজে ঢুকতে পারেনি ওরা। হাজার হাজার কোটি টাকার মালিক ওরা ষড়যন্ত্র করছে। সাথে আছে কিছু মোশতাক। এই বাংলাদেশে এখনও ওরা কথা বলে। আমি লজ্জা পাই। সে কারণেই আমরা গোলাম আযমকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছিলাম। নেত্রী আমাকে ঢাকায় নিয়ে বললেন—তুমি নারায়ণগঞ্জ যাবে না। তোমাকে মেরে ফেলা হবে। আমরা ভেবেছিলাম, ওরা সামনে থেকে আসবে। কিন্তু ওরা পেছন দিয়ে এসেছে। আওয়ামী লীগ অফিসে বোমা ফোটানো হলো। বিশজন লোক সাথে সাথে মারা গেল। আমি ভেবেছিলাম কবরের আজাব শুরু হয়েছে। আমাদের বন্ধু, সন্তানদের রক্ত এত গরম ছিল। হাসপাতালে আমাদের বারবার জিজ্ঞেস করছিল, তখনও নিজের কথা বলিনি, বলেছিলাম—শেখ হাসিনাকে বাঁচান।

    নারায়ণগঞ্জে অনেকে আওয়ামী লীগ সাজতে চান, কিন্তু বিএনপি-জামায়াতের বিরুদ্ধে নামে না মন্তব্য করে শামীম ওসমান বলেন, মোশতাক বঙ্গবন্ধু হত্যার পর আমাদের বাসায় ফোন করেছিল। আমার মা সেদিন খুনি মোশতাককে বলেছিলেন, সে (শামীম ওসমানের বাবা) যদি আপনার মন্ত্রিসভায় যোগ দেয়, প্রথমে চেষ্টা করব তাকে হত্যা করতে, নয়ত নিজে আত্মহত্যা করব। আমি সেটার সাক্ষী। মনসুর আলী যে রুমে ছিলেন, আমার বাবাও সেখানে ছিলেন। তাকে অজু পর্যন্ত করতে দেয়নি।

    শামীম ওসমান আরও বলেন, আমাদের রাজনীতি করার কথা ছিল না। বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে আমরা জাপানের চেয়েও উন্নত দেশ থাকতাম। বঙ্গবন্ধু আওয়ামী লীগের সম্পদ ছিলেন না, শেখ হাসিনাও আজ শুধু আওয়ামী লীগের সম্পদ নন, আমাদের বাচ্চাদের ভবিষ্যৎ শেখ হাসিনা। আজকেও আমি বলতে চাই-আমাদের চাওয়া পাওয়ার কিছু নেই।

    তিনি বলেন, শেখ হাসিনা দেশে ফিরে দুই হাত উপরে তুলে কাঁদছিলেন। বলেছিলেন-আমার বাবা-মাকে যেখানে মেরেছে, সেখানে দুই রাকাত নফল নামাজ পড়তে চাই। তারা সেখানে নফল নামাজ পড়তে দেয়নি। যারা আমাদের জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করেছে, তাদের সাথে গণতন্ত্র চর্চা করতে পারব না। আমরা আমাদের বাংলাদেশকে বাঁচাতে চাই।

    সমাবেশে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই, সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহিদ মো. বাদল, মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান চন্দন শীল, সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা, সাবেক সংসদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল কায়সার, সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সামসুল ইসলাম ভূঁইয়া, সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও পিরোজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মাসুদুর রহমান মাসুম, মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন ভূইয়া সাজনু, মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

    এফএস

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…