এইমাত্র
  • মধুপুরে প্রাইভেটকার ও মাহিন্দ্রার সংঘর্ষে নিহত ২
  • ঈদুল আজহাতেই রিজার্ভ বাড়ল ৩১ কোটি ৮৩ লাখ ডলার
  • অস্ট্রেলিয়াকে ১৪১ রানের টার্গেট দিল টাইগাররা
  • হজের প্রথম ফিরতি ফ্লাইটে দেশে ফিরলেন ৪১৭ হাজি
  • টসে হেরে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ
  • দুপুরে ভারত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
  • ঈদে ৭ খামার থেকে ৭০ লাখ টাকার গরু কেনেন সেই ইফাত
  • এরপর গুলি করলে আমরাও পাল্টা গুলি করব: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
  • সুনামগঞ্জ পুলিশের উদ্যোগে বন্যার্তদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ
  • শ্রমিক-মালিক স্বার্থ রক্ষায় শ্রম আইন হালনাগাদ হচ্ছে: শ্রম প্রতিমন্ত্রী
  • আজ শুক্রবার, ৭ আষাঢ়, ১৪৩১ | ২১ জুন, ২০২৪
    শিক্ষাঙ্গন

    বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থান করেও মামলার আসামি জবি শিক্ষার্থী!

    এস.এম শাহাদাত হোসেন অনু, জবি প্রতিনিধি প্রকাশ: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ১০:৪৮ পিএম
    এস.এম শাহাদাত হোসেন অনু, জবি প্রতিনিধি প্রকাশ: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ১০:৪৮ পিএম

    বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থান করেও মামলার আসামি জবি শিক্ষার্থী!

    এস.এম শাহাদাত হোসেন অনু, জবি প্রতিনিধি প্রকাশ: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ১০:৪৮ পিএম

    বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থান করেও শরীয়তপুরের জাজিরা থানার মুলনা ইউনিয়নের দুই পক্ষের মারামারির ঘটনার এক মামলায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) এক শিক্ষার্থীকে আসামি করা হয়েছে। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর নাম মো. জাহিদুল ইসলাম। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী।

    জাহিদুল ইসলাম জানান, গত ১৬ সেপ্টেম্বর রাত ৯টার দিকে জাজিরা থানার মুলনা ইউনিয়নের দুই পক্ষের মধ্যে মারামারি হয়। এই ঘটনা ঘটার সময় আমি আমার বিশ্ববিদ্যালয়ে ছিলাম। কিন্তু আমাকে মিথ্যা মামলায় আসামি দেওয়া হয়। সমাজিক প্রতিহিংসামূলক এই কাজ আমাকে হেনস্তা করার জন্য মামলায় দেওয়া হয়।

    তিনি আরও জানান, আমার ক্যারিয়ার যাতে খারাপ কিছু হয় সেই জন্যই এই মামলা দেওয়া হয়েছে। আমার কাছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিসিটিভির ফুটেজ এবং প্রমাণ রয়েছে যে আমি ক্যাম্পাসে উপস্থিত ছিলাম। আমি যেন প্রতিহিংসার শিকার না হই সেই জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে বিনিত আবেদন জানাচ্ছি।

    মামলার বিষয়ে জাজিরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, তাঁর কাছে যদি ক্যাম্পাসে বা হলে অবস্থান করার সুস্পষ্ট প্রমাণ থাকে তাহলে আমাদের কাছে হাজির করুক সেগুলো। আমরা তা যাচাই-বাছাই করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব। তবে মামলা যেহেতু হয়েছে নিষ্পত্তি করতে কমপক্ষে দুমাস সময় লাগবে।

    এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক মোস্তফা কামাল বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে আমি জেনেছি। এসপির সঙ্গে এ বিষয়ে আমার কথা হয়েছে। ওই ঘটনার দিন ওই শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয় অবস্থান করেও কিভাবে মামলার আসামি হলো আমি বোধগম্য নয়। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী আমাদের সিসিটিভি ফুটেজ সহ সকল প্রমাণ হাজির করেছে।

    তিনি আরও বলেন, ক্যাম্পাসে অবস্থান করার পরেও তাঁর নামে কিভাবে মামলা হয়েছে বিষয়টি খতিয়ে দেখতে বলেছি। একজন শিক্ষার্থীকে তো মামলা দিয়ে এভাবে হয়রানি করতে পারে না।

    পিএম

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…