এইমাত্র
  • আফগানিস্তানে আকস্মিক বন্যায় ৩৩ জনের মৃত্যু
  • হাসপাতালের প্রিজন সেলে আসামির হাতে আসামি খুন
  • মুক্তিপণ নিয়ে ফেরার পথে ৮ জলদস্যু গ্রেপ্তার
  • বাংলাদেশে পালিয়ে এলো মিয়ানমার বিজিপির আরও ৯ সদস্য
  • নতুন বছরকে স্বাগত জানিয়ে হলো মঙ্গল শোভাযাত্রা
  • কুষ্টিয়ার মিরপুরে আ.লীগ নেতার গুলিতে ২ জন গুলিবিদ্ধ, আটক ২
  • অবকাঠামো বিহীন টেকনাফ সমুদ্র সৈকতে পর্যটকের ঢল
  • উত্তেজনার মধ্যেই ইসরায়েলে রকেট হামলা হিজবুল্লাহর
  • রাজধানীতে অতিরিক্ত মদপানে ও লেভেলের শিক্ষার্থীর মৃত্যু
  • ফিলি’স্তিন রাষ্ট্রকে স্বীকৃতি দিতে ‘প্রস্তুত’ ইউরোপের যে ৩ দেশ
  • আজ রবিবার, ১ বৈশাখ, ১৪৩১ | ১৪ এপ্রিল, ২০২৪
    ধর্ম ও জীবন

    শবে বরাত কেন ফজিলতপূর্ণ, এই রাতে কি ভাগ্য লেখা হয়?

    ধর্ম ও জীবন ডেস্ক প্রকাশ: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১:৩৪ এএম
    ধর্ম ও জীবন ডেস্ক প্রকাশ: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১:৩৪ এএম

    শবে বরাত কেন ফজিলতপূর্ণ, এই রাতে কি ভাগ্য লেখা হয়?

    ধর্ম ও জীবন ডেস্ক প্রকাশ: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১:৩৪ এএম

    শাবান মাসের ১৪ তারিখ দিবাগত রাত ‘শবে বরাত’ নামে প্রসিদ্ধ। শব্দ দুটি ফারসি ভাষা থেকে এসেছে। ‘শব’ মানে রাত, ‘বরাত’ মানে মুক্তি। আরবি শব্দ ‘বারাআতে’র অর্থও মুক্তি। তাই শবে বরাত অর্থ হবে মুক্তির রাত। তবে হাদিসে এ রাতকে ‘শবে বরাত’ নামে আখ্যায়িত করা হয়নি। বরং একে ‘নিসফ শাবান’ বা ‘শাবান মাসের মধ্য দিবসের রজনী’ বলা হয়েছে। সাথে এও বলা হয়েছে- এটি এমন একটি রাত, যে রাতে বান্দাকে তার প্রতিপালক গোনাহ থেকে মুক্তি দিয়ে ক্ষমা করে দেন।

    হাদিস গ্রন্থে এসেছে, মুআজ ইবনে জাবাল রা: থেকে বর্ণিত, নবী করিম সা: বলেছেন, ‘আল্লাহ তা‘আলা অর্ধশাবানের রাতে (শবে বরাত) মাখলুকাতের দিকে রহমতের দৃষ্টি দেন এবং মুশরিক ও বিদ্বেষ পোষণকারী ছাড়া আর সবাইকে ক্ষমা করে দেন।’ (ইবনে হিব্বান : ৫৬৬৫, ইবনে মাজাহ: ১৩৯০ ও মুসনাদে আহমদ : ৪/১৭৬)

    তবে মহিমান্বিত এই রাতকে ঘিরে এমন কিছু আমল ও ধারণা প্রচলিত রয়েছে যা হাদিস বা পূর্ববর্তী আলেমদের যুগে পাওয়া যায়। এমন একটি প্রচলিত ধারণা হলো- শবে বরাতে ভাগ্য নির্ধারিত হওয়া।

    অনেকে ভাবেন, এ রাতে ভাগ্য অনুলিপি করা হয় বা পরবর্তী বছরের জন্য হায়াত-মউত ও রিজিক ইত্যাদির অনুলিপি করা হয়। হাদিস বিশারদদের মতে, এ অর্থে বর্ণিত হাদিসগুলো অত্যন্ত দুর্বল অথবা বানোয়াট। এ অর্থে কোনো সহিহ বা গ্রহণযোগ্য হাদিস বর্ণিত হয়নি।

    কোরআন কারিমে মহান আল্লাহ বলেন-

    إِنَّا أَنْزَلْنَاهُ فِي لَيْلَةٍ مُبَارَكَةٍ إِنَّا كُنَّا مُنْذِرِينَ فِيهَا يُفْرَقُ كُلُّ أَمْرٍ حَكِيمٍ

    ‘আমি তো তা অবতীর্ণ করেছি এক মুবারক রজনীতে এবং আমি তো সতর্ককারী। এ রজনীতে প্রত্যক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় স্থিরীকৃত হয়।’ (সূরা দুখান, আয়াত, ৩-৪)

    এ আয়াতের ব্যাখ্যায় তাবিয়ী ইকরিমাহ বলেন, এখানে ‘মুবারক রজনী’ বলতে ‘মধ্য শাবানের রাতকে’ বুঝানো হয়েছে। ইকরিমাহ বলেন, এ রাতে গোটা বছরের সকল বিষয়ে ফয়সালা করা হয়।

    মুফাস্সিরগণ ইকরিমার এ মত গ্রহণ করেননি। ইমাম তাবারি বিভিন্ন সনদে ইকরিমার এ ব্যাখ্যা উদ্ধৃত করার পরে তার প্রতিবাদ করেছেন। তিনি উল্লেখ করেছেন যে, ইকরিমার এ মত ভিত্তিহীন।

    তিনি বলেন যে, সঠিক মত হলো, এখানে ‘মুবারক রজনী’ বলতে ‘লাইলাতুল কদর’-কে বুঝানো হয়েছে। আল্লাহ যে রাত্রিতে কোরআন অবতীর্ণ করেছেন সে রাত্রিকে এক স্থানে লাইলাতুল কদর: ‘তাকদীরের রাত’ বা ‘মর্যাদার রাত’ বলে অভিহিত করেছেন।

    অন্যত্র এ রাত্রিকেই ‘লাইলাতুম মুবারাকা’ বা ‘বরকতময় রজনী’ বলে অভিহিত করেছেন। এবং এ রাত্রিটি নিঃসন্দেহে রমজান মাসের মধ্যে; কারণ অন্যত্র আল্লাহ ঘোষণা করেছেন যে, তিনি রমজান মাসে কোরআন নাযিল করেছেন। এ থেকে প্রমাণিত হয় যে, মুবারক রজনী রমজান মাসে, শাবান মাসে নয়। (তাবারী, তাফসীর ২৫/১০৭-১০৯)

    পরবর্তী মুফাস্সিরগণ ইমাম তাবারীর সাথে ঐকমত্য পোষণ করেছেন। তারা বলেছেন যে, ‘মুবারক রজনী’ বলতে এখানে ‘মহিমান্বিত রজনী’ বা ‘লাইলাতুল কদর’ বুঝানো হয়েছে। তাদের মতে ‘লাইলাতুম মুবারাকা’ এবং ‘লাইলাতুল কদর’ একই রাতের দুটি উপাধি।

    শবে বরাতের ফজিলত ও তার প্রামাণ্যতা

    এ রাতের ফজিলত সম্পর্কিত একাধিক সহি হাদিস বর্ণিত হয়েছে। একটি উল্লেখ করা হলো– হজরত মুআজ ইবনে জাবাল (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী করিম (সা.) বলেছেন, ‘আল্লাহতায়ালা অর্ধশাবানের রাতে (শবে বরাত) সৃষ্টির প্রতি রহমতের দৃষ্টি দেন এবং মুশরিক ও বিদ্বেষ পোষণকারী ছাড়া আর সবাইকে ক্ষমা করে দেন।’ (মুসনাদে আহমদ : ৪/১৭৬)

    শবে বরাতের ক্ষেত্রে ছাড়াছাড়িতে লিপ্ত অনেকে এই হাদিসটিসহ শাবানের রাতের সব হাদিসকে অস্বীকার করেন এবং শবে বরাতকে বিদআত বলেন। কিন্তু ইমাম মুনযিরী, ইবনে রজব, নুরুদ্দীন হাইসামী, কাসতাল্লানী, যুরকানীসহ আরও অনেক হাদিস বিশারদ এটিকে সহি বলেছেন। শুধু তাই নয়; শায়খ নাসিরুদ্দিন আলবানীও (রহ.) সিলসিলাতুল আহাদিসিস সাহিহা গ্রন্থে এই হাদিসের সমর্থনে আরও আটটি হাদিস উল্লেখ করেছেন এবং বলেছেন, এসব বর্ণনার মাধ্যমে সমষ্টিগতভাবে এই হাদিসটি নিঃসন্দেহে সহি প্রমাণিত হয়। (সিলসিলাতুল আহাদিসিস সাহিহাহ: ৩/১৩৫-১৩৯)। সুতরাং শবে বরাত আছে এবং এটি একটি ফজিলতপূর্ণ রাত–হাদিসের আলোকে এটি নিঃসন্দেহে প্রমাণিত হলো।

    সুতরাং যারা বলে, ‘শবে বরাত’ নেই তারা যেমন ভুল করেন, ঠিক তেমনি যারা শবে বরাতকে সবচেয়ে শ্রেষ্ঠ ও ভাগ্যনির্ধারণী রাত মনে করেন তারাও ভুলের মধ্যেই আছেন। মধ্যমপন্থা হলো- ‘শবে বরাত’ তথা শাবানের মধ্যরজনী একটি বরকতপূর্ণ রজনী যে রাতে আল্লাহ তাঁর বান্দাদের গোনাহ মাফ করেন। কাজেই গোনাহর বোঝা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য আজকের এই রাতে মহান আল্লাহর দরবারে তাঁর ক্ষমা লাভের প্রত্যাশী হওয়াই আমাদের কর্তব্য।

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…