এইমাত্র
  • গণভবনে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করলেন প্রধানমন্ত্রী
  • নেপালকে হারিয়ে সুপার এইটে বাংলাদেশ
  • জাতীয় ঈদগাহে প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত, নামাজ পড়লেন রাষ্ট্রপতি
  • ৪০ হাজারের বেশি মুসল্লি নিয়ে আল-আকসায় ঈদের জামাত
  • ২২০০ পশুর গোশতো বিতরণ হবে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে
  • ঈদের দিন রাজধানীসহ দেশের যেসব অঞ্চলে বৃষ্টির সম্ভাবনা
  • বায়তুল মুকাররমে ঈদুল আজহার ৫ জামাতের সময়সূচি
  • দেশবাসীর উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী ভিডিও বার্তায় যা বললেন
  • সীমান্ত সু-রক্ষায় কঠোর অবস্থানে থাকার নির্দেশ
  • ঈদের ছুটিতে বেনাপোলে উপচে পড়া ভিড়, দুই ইমিগ্রেশনেই ভোগান্তি
  • আজ সোমবার, ৩ আষাঢ়, ১৪৩১ | ১৭ জুন, ২০২৪
    দেশজুড়ে

    রমজানে ৫০ টাকারও মাংস বিক্রির ঘোষনা দিলেন ব্যবসায়ী

    এস এম ফয়সাল শামীম, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট প্রকাশ: ১৯ মার্চ ২০২৩, ১০:৩৫ পিএম
    এস এম ফয়সাল শামীম, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট প্রকাশ: ১৯ মার্চ ২০২৩, ১০:৩৫ পিএম

    রমজানে ৫০ টাকারও মাংস বিক্রির ঘোষনা দিলেন ব্যবসায়ী

    এস এম ফয়সাল শামীম, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট প্রকাশ: ১৯ মার্চ ২০২৩, ১০:৩৫ পিএম
    ফাইল ছবি

    চড়া দামের কারণে বটে, তার চেয়ে বড় যে কারণে মাংস খেতে পারছে না দরিদ্র মানুষ, তা হলো আধা কেজির কমে মাংস বিক্রি হয় না বাজারে। দুই সদস্যের পরিবারে এক বেলার জন্য দেড় থেকে দু’শ গ্রাম মাংস যথেষ্ট হলেও এই পরিমাণ মাংস কেনাবেচার প্রচলন নেই বাংলাদেশে।

    তবে এই রোজার মাসে ক্রেতার চাহিদা অনুযায়ী মাংস বিক্রির ঘোষনা দিয়েছেন কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার ভিতরবন্দ ইউনিয়নের মাংস ব্যবসায়ী আনিছুর রহমান আনিছ।

    সাধ আছে, কিন্তু সাধ্য না থাকায় গরুর মাংস কিনতে পারছেন না কুড়িগ্রামের নিম্ন আয়ের মানুষ। সর্বনিম্ন আধা কেজি মাংসের দাম ৩৫০ টাকা। এই পরিমাণ মাংস কিনলে একদিনের রোজগারের প্রায় পুরোটাই চলে যায়। তাই বেশিরভাগ মানুষ মাংসের দোকানের ধারের কাছেও ভিড়ছেন না।

    তবে পরিবারের সদস্যদের আবদার যারা ফেলতে পারছেন না, দুধের স্বাদ ঘোলে মেটানোর মতো গরুর মাথা, কলিজা, ফুসফুস, ভুরি কিনে ফিরছেন। কুড়িগ্রামের বাজারে গরুর মাংসের কেজি সাতশ’ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে।

    এ ব্যাপারে আনিছুর রহমান ‘সময়ের কন্ঠস্বরকে বলেন, রমজান উপলক্ষে আমি এ উদ্যোগ নিয়েছি। সবাই দোয়া করবেন যেনো আমি আমার ওয়াদা রাখতে পারি।

    স্থানীয় ভিতরবন্দ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শফিউল আলম শফি আনিছের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে বলছেন, ‘এক সময় এক পোয়া-আধ পোয়া মাংস বিক্রি হতো। কিন্তু এখন তা হয়না। সর্বনিন্ম আধাকজি করে বিক্রি হয়। আনিছের এর উদ্যোগের কারণে অন্তত আমার ইউনিয়ন ও পাশের ৪ ইউনিয়নের মানুষ সাধ্যমত গোসতো কিনে খেতে পারবে।

    এফএস

    ট্যাগ :

    সম্পর্কিত:

    সম্পর্কিত তথ্য খুঁজে পাওয়া যায়নি

    সর্বশেষ প্রকাশিত

    Loading…